শিরোনাম:
ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

Bijoynews24.com
মঙ্গলবার, ১৬ মার্চ ২০২১
প্রথম পাতা » আজব দুনিয়া | খুলনা | জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | শিক্ষা সংবাদ | শিরোনাম » শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা অনুদানের গুজব! শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার দোকানে ভীড়
প্রথম পাতা » আজব দুনিয়া | খুলনা | জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | শিক্ষা সংবাদ | শিরোনাম » শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা অনুদানের গুজব! শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার দোকানে ভীড়
মঙ্গলবার, ১৬ মার্চ ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা অনুদানের গুজব! শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার দোকানে ভীড়

---বিজয় নিউজ , কুষ্টিয়া, ১৬মার্চ ২০২১।। করোনা মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের সব শিক্ষার্থীকে ১০ হাজার টাকা সরকারি অনুদান দেওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে এমন গুজবে কান দিয়ে গত কয়েকদিনে দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের ভিড় জমানোর খবর পাওয়া গেছে।

প্রতিষ্ঠানপ্রধানের প্রত্যয়নপত্র নিতে দেশের বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও মাদরাসায় ভিড় করেছেন শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া দেশের কম্পিউটারের দোকানগুলোতে দেখা গেছে উপচে পড়া ভীর। একসঙ্গে বিপুল সংখ্যক আবেদনের ফলে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট ডাউন হয়ে যাওয়ারও খবর পাওয়া গেছে।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) আওতাধীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষক-কর্মচারী ও ছাত্রছাত্রীদের অনুদান প্রদানের একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছিল। তবে সেখানে টাকার পরিমাণ উল্লেখ ছিল না। তা ছাড়া নীতিমালা ও শর্ত অনুসারে সবাই আবেদনের যোগ্যও না। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হয়েছে সবাইকে ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়া হবে। সেই গুজবের রেশ ধরে দেশের স্কুল-কলেজগুলোতে প্রত্যয়নপত্র নিতে ভিড় করেন হাজারো শিক্ষার্থী।

এছাড়াও প্রতারণা এড়াতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সতর্কবার্তা জারি করে। গত বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের এক সতর্কবার্তায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ বিষয়ে সর্তক থাকার আহ্বান জানানো হয়।

তবে করোনাকালীন সময়ে শিক্ষার্থীদের সরকারি অর্থায়নে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে টাকা দেওয়া হবে এমন গুজবে কুষ্টিয়ার কুমারখালীসহ অন্যান্য উপজেলাতেও সাধারন শিক্ষার্থীরা স্কুল থেকে বিভিন্ন নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্টের দোকান তারপর কম্পিউটারে দোকানে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে।

চলতি মার্চ মাসের ৭তারিখ থেকে “আমার সরকার “নামক একটি ওয়েবসাইড থেকে শিক্ষার্থীর বিভিন্ন তথ্যাদি পূরন করে তা সাবমিট করছে।

আর এর জন্য প্রথমেই একজন শিক্ষার্থীকে তার নিজ প্রতিষ্ঠানে দৌঁড়াতে হচ্ছে প্রত্যয়নপত্রের জন্য। আর নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ স্বাক্ষরিত একটি প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করতে শিক্ষার্থীদের কোন রশিদ ছাড়াই দিতে হচ্ছে ৫০ থেকে ১০০টাকা। আর এটা সংগ্রহের পরই ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্মনিবন্ধন সহ বিভিন্ন কাগজপত্র সহ যেতে হচ্ছে স্থানীয় বিভিন্ন কম্পিাউটারের দোকানে আর সেখানে সব তথ্যাদি দিয়ে আমার সরকার ওয়েবসাইডে গিয়ে পূরন করতে হচ্ছে ফরমটি। আর এখানে সকল শিক্ষার্থীদের দিতে হচ্ছে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা। এছঅড়াও ছবি উঠতে লাগছে বাড়তি ৫০ টাকা। এরপর আবার বৃত্তির লোভে দ্যৌড়াতে হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং নগদের দোকানে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকার কতৃক একটি বৃক্তির কথা চিন্তা করেছে সরকার। তবে সেই শিক্ষার্থী যদি প্রতিবন্ধী, ক্যান্সারে আক্রান্ত সহ ভিবিন্ন দূরাগ্য রোগে আক্রান্ত শিক্ষার্থীরা বিশেষ বিবেচনায় পাবে এই সুবিধা। অথচ এর পিছনে ছুটছে কুমারখালী উপজেলার হাজার হাজার সাধারন শিক্ষার্থী।

চলতি মাসে ৭ তারিখ থেকে উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং কম্পিউটারের দোকানে দেখা গেছে চোখে পড়ার মতো শিক্ষার্থী এবং অভিবাবকদের ভীড়।

জানা গেছে কিছু অসাধু কম্পিউটারের দোকানদাররা অনেক সময় সেই ওয়েবসাইডের কায্যক্রম সম্পূর্ন না করেও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। উক্ত সাইডে সাবমিট করলে নিদিষ্ট একটি ট্রাকিং কোড দিচ্ছে অথচ প্রায় কম্পিউটারের দোকানদার সেটা না করে আর্থিক সুৃবিধা নিতে ট্র্যাগিং কোড ছাড়াই ভূয়া একটি কাগজ হাতে ধরিয়ে দিয়ে লুটে নিচ্ছে কোমল শিক্ষার্থীদের হাজার হাজার টাকা। বিশেষ করে কুমারখালী উপজেলা রোড, কুমারখালী থানার পিছন গেটের নারিকেল বাজারের আশপাশ, চৌরঙ্গী বাজার, পান্টি বাজার, মহেন্দ্রপুর বাজার, শিলাইদাহ বাজার, আলাউদ্দিন মোড় সহ উপজেলার ভিভিন্ন দোকানে এমন কাজ পরিচালোনা হয়ে আসছে।

এবিষয়ে কুমারখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রশিদ জানান, সকল শিক্ষার্থীদের টাকা দেওয়া হবে এটি একটি গুজব।বিষয়টি আমিও শুনেছি তবে প্রতিবন্দী, ক্যান্সারে আক্্রান্ত সহ দূরাগ্য রুগীদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর থেকে একটি অনুদান আসবে বলে একটি বিঞ্জপ্তি পেয়েছি। আর প্রত্যয় পত্র কেনো নেওয়া লাগবে সেটা জানা নেই আমার, আর এর জন্য কোন টাকা নেবার কথা না শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের।

গত ৭মার্চ রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবুল খায়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন, করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সীমিত সংখ্যক শিক্ষার্থী ও প্রতিষ্ঠানকে যাচাই-বাছাই করে অনুদান দেওয়া হবে, সবাইকে নয়। এই বিষয়ে কোনো ধরনের গুজবে কান না দেওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

এমন অবস্থাতে সাধারন শিক্ষার্থীরা ফরম পূরনে যে টাকা অযথা ব্যার করছে তার কোন সফলতা আসবেনা, বরং অহেতু এমন দৌড়ঝাঁপ বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদরা।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
নারী হাফেজকে ধর্ষণের মামলায় কারাগারে মাদ্রাসা শিক্ষক
‘লকডাউনের’ প্রথম দিন রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৪০৩
লঘুচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত
পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা, ফেরির মাস্টার বরখাস্ত
লকডাউনের প্রথম সকালে ট্রাকের ধাক্কায় ঝরল ৬ প্রাণ
কঠোর লকডাউন শুরু, শূন্য রাজপথ
চেতনা নাশক ইনজেকশন পুশ করে রোগীদের ধ”র্ষ’ণ করতো এই ডাক্তার!
করোনার ঝুঁকি সত্ত্বেও ঢাকা ছাড়ছে মানুষ, মানছে না স্বাস্থ্যবিধি
গতবারের চেয়েও কঠোর ভাবে মাঠে নামছে সেনাবাহিনী-বিজিবি
১৯ দিনের ছুটিতে দেশ
ভূমধ্যসাগরে নৌডুবিতে ১৭ বাংলাদেশির সলিল সমাধি
কঠোর বিধি-নিষেধের আওতামুক্ত থাকছে যেসব পণ্য ও প্রতিষ্ঠান
বিদেশযাত্রীদের জন্য অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলবে
একদিনে ভারতে করোনায় ৩ হাজার ৯৯৮ জনের মৃত্যু
মহামারির মাঝে সারা দেশে ঈদ উদযাপন
আজ পবিত্র ঈদুল আজহা
নিউ লাইফ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ উপহার বিতরণ
বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে সরকারি নির্দেশনা না মানায় তিন সিএন্ডএফ প্রতিনিধিকে অর্থদন্ড
কুষ্টিয়ায় বাথরুমে ওড়নায় ঝুলছিল মা-ছেলের লাশ
বিএমএসএফের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে ১২ সদস্যের অন্তর্ভুক্তি