শিরোনাম:
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮

Bijoynews24.com
বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | রাজশাহী | শিরোনাম » বগুড়ায় কালো কাপড়ে ঢাকল বিকৃত ভাস্কর্য ‘বীর বাঙালী’
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | রাজশাহী | শিরোনাম » বগুড়ায় কালো কাপড়ে ঢাকল বিকৃত ভাস্কর্য ‘বীর বাঙালী’
বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

বগুড়ায় কালো কাপড়ে ঢাকল বিকৃত ভাস্কর্য ‘বীর বাঙালী’

---ব্যুরো অফিস বগুড়া : বগুড়ায় মুক্তিযুদ্ধের একমাত্র ভাস্কর্য ‘বীর বাঙালী’ সংস্কারের নামে বিকৃত আদলে তৈরীর প্রতিবাদে সেটি কালো কাপড়ে ঢেকে দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মানুষরা। বিজয়ের এই মাসে দ্রুত তা অপসারন করে আগের ভাস্কর্য প্রতিস্থাপনের দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল। বুধবার বিকেলে ভাস্কর্যটি কালো কাপড়ে ঢেকে দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষরা।
জানা গেছে, আশির দশকে ভাস্কর সুলতানুল ইসলাম নির্মান করেন ৯ ফুট দৈর্ঘ্য ভাস্কর্যটি। নিজ জেলা বগুড়ায় মুক্তযুদ্ধের এই ভাস্কর্য স্থাপন করতে চাইলেও তা স্থাপনের আগেই তাঁকে চলে আসতে হয় ঢাকায়। ভাস্কর্যটি পরে থাকে বিসিক শিল্পনগরি এলাকায় সুলতানের বাবার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে। ১৯৯১ সালে স্থানীয় ছাত্র নেতা ও  মুক্তিযোদ্ধা সংসদের হস্তক্ষেপে সেটি স্থাপন করা হয় শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথায়। ভাস্কর্যটির নামকরন করা হয় ‘বীর বাঙালী’। ভাস্কর্যটি ছিল ধূসর বর্ণের এক যুবকের হাতে শান্তির পায়রা, খালি পায়ে, খালি গায়ে, কাঁধে রাইফেল নিয়ে একজন মুক্তিযোদ্ধার প্রতিকৃতি। ১৯৯৩ সালে রাতের আঁধারে স্বাধীনতা বিরোধীরা ভেঙে ফেলে ভাস্কর্যটি। ভাস্কর সুলতানুল ইসলাম সেসময় প্রবাসে অবস্থান করায় স্থানীয় শিল্পী আমিনুল হক দুলাল সেটি সংস্কার করেন।  ২০০২ সালে জোট সরকারের আমলে যখন শহরের প্রধান সড়কগুলো প্রশস্ত করা হয় তখন ভাস্কর্য ‘বীর বাঙালী’ সাতমাথা থেকে মূল শহর থেকে বের করে প্রবেশদ্বারে স্থাপন করে পৌর কর্তৃপক্ষ। ২০১৬ সালে আবারো ক্ষতিগ্রস্থ হয় ভাস্কর্যটি। যদিও পুলিশের দাবি সেটি ছিলো দুর্ঘটনা। কিন্তু ১৬ সালের ১০ ডিসেম্বর সকালে হাত ভাঙ্গা ভাস্কর্যটিকে মুখ থুবরে পরে থাকতে দেখা যায়। তৃতীয় দফা এটি ভাঙার পর ‘রাজমিস্ত্রি’ দিয়ে রাতারাতি তৈরী করে শহরের প্রবেশদ্বার বনানীতে প্রতিস্থাপন করে বগুড়া পৌর কর্তৃপক্ষ। বীর বাঙালীর রুপ নেয় বিকৃত। খালি পায়ের স্থলে যোগ হল কালো বুট, খালি মুখে যোগ হয় মোছোয়াল, রাইফেলে যোগ হয় কালো বেল্ট, হাতে শান্তির পায়রার বদলে উঠে হাঁস। রাজমিস্ত্রি দিয়ে তৈরী ভাস্কর্যটি দেখতে অবিকল পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যদের মতো হলেও তিন বছর সেভাবেই রাখা হয়। বারবার পৌর কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ হয়নি।
বুধবার বিকেলে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের কণ্ঠস্বর নামক ব্যানারের সদস্যরা বিকৃত ভাস্কর্যটি কালো কাপড়ে ঢেকে দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্যটির নির্মাতা ভাস্কর সুলতানুল ইসলামের মাধ্যমে পুনরায় সংস্কার করে প্রতিস্থাপনের দাবি জানান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের এই মানুষেরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ খান রনি, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট বগুড়ার সভাপতি তৌফিক হাসান ময়না, জেলা সিপিবি সাধারন সম্পাদক আমিনুল ফরিদ, জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, বগুড়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম বাবু, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক জে এম রউফ, সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়ার সাধারণ সম্পাদক গনেশ দাস, সাংবাদিক সংগঠক রাকিব জুয়েল, ফরহাদ শাহী, প্রভাষক আল আমিন।
বগুড়ায় ৯০ এর ছাত্রনেতারা জানান, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম স্থান ছিল বীর বাঙালী ভাস্কর্য’র পাদদেশে। বগুড়া ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক নেতা ফিরোজ হামিদ খান রিজভী জানান, বীর বাঙালী ভাস্কর্য আমাদের বগুড়ার মুক্তিযুদ্ধের প্রতিক। এটিকে দৃষ্টির আড়াল করতে বিশেষ জনগোষ্ঠী এখনও তৎপর। শুধু আড়াল করেনি, বিকৃত রূপ দিয়ে ব্যঙ্গাত্মক রুপ দিয়েছে। ১৯৯৩ সালেও একবার এটিকে সরানো চেষ্ঠা করা হয়েছিল কিন্তু তা পারেনি। সেসময় আন্দোলন চলছিল, ভাস্কর্য ভাংচুরের দিন বগুড়ার সাবেক মেয়র রেজাউল করিম মন্টুকে আহত করেছিল তৎকালিন নামধারী মৌলবাদিরা।
সে সময়ের  জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন অধ্যক্ষ শাহাদৎ আলম ঝুনু। বর্তমানে তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি জানান, আমাদের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের মূল স্থান ছিল বীর বাঙালী ভাস্কর্য। এসময় তিনি ভাস্কর্য’র বেশ কয়েকটি ছবি দেখিয়ে বলেন আমাদের আন্দোলন সংগ্রামে বীর বাঙালী ছিল মিলনস্থল। ১৯৯৩ সালে মৌলবাদীদের হামলায় এটি ভাঙার চেষ্ঠা করা হয়। কবুতর সহ হাতটি  ভেঙে ফেলা হয় যা পরবর্তিতে শহরের কামারগাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়।
মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক এএইচএম আখতারুজ্জামান জানান, ভাস্কর্যটি যখন ২০০২ সালে সরানো হয় তখন আমরা এটির বিরোধীতা করেছি। বিরোধী করে কোন লাভ হয়। তবে বীর বাঙালীকে আবারও তার নিজ আদলে বিজয়ের মাসেই ফেরানো দাবি জানান এই মুক্তিযোদ্ধা।
ভাস্কর্যটি আগের আদলে ফেরাতে চান ‘বীর বাঙালী’র ভাস্কর সুলতানুল ইসলাম। তিনি সুযোগ পেলে আবারও আগের আদলে ফেরাবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি আরও বলেন বিসিক থেকে ১৯৯১ সালে বগুড়া শহরের সাতমাথায় এটি স্থাপন করা হয়েছিল।
সম্মিলিত সাংস্কৃতি জোট বগুড়ার সভাপতি তৌফিক--- হাসান ময়না জানান, বিকৃত ভাস্কর্য সরানোর জন্য পৌরসভায় লিখিত অবেদন করে কোন লাভ হয়নি। অবিলম্বে এটি সরিয়ে পূর্বের প্রকৃত ভাস্কর্য স্থাপনের দাবী জানান তিনি।
বগুড়া পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী আবু জাফর রেজা বলেন, ভাস্কর্যটি ভেঙে যওয়ার পর ৮ হাজার টাকা খরচ করে মেরামত করা হয়। আমরা অনেকগুলো অভিযোগ পেয়েছি। মূল ভাস্কর্য শিল্পীরও সন্ধান পাওয়া গেছে। খুব দ্রুতই সেটি আবার আগের মতো করে নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।
জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ খান রনি জানান, বীর বাঙালী পূর্বের রুপে প্রতিস্থাপন সহ সাতমাথায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনে জেলা পরিষদ উদ্যোগ গ্রহণ করবে।
বগুড়া জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক বলেন, ভাস্কর্য বেশ কয়েকবার সংস্কার হয়েছে, বর্তমানে যেটি রয়েছে তা মূল ভাস্কর্যর সাথে যথেষ্ঠ ভিন্নতা রয়েছে। এ বিষয়ে পৌর কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে তিনি পদক্ষেপ নিবেন।



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
মুসলমানদের নিকট মসজিদুল আকসা এতোটা গুরুত্বপূর্ণ কেন ?
গভীর রাতে মসজিদে কিশোরীর সঙ্গে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ ইমাম আটক
শতাধিক রকেট হামলা হামাসের, ২ ইসরাইলি নিহত
বৈদ্যুতিক ট্রেনের যুগে প্রবেশ করল বাংলাদেশ
ক্ষোভে ফুঁসছে মুসলিম বিশ্ব
অসামাজিক কার্যকলাপ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে আটকে বিয়ে দিলেন এলাকাবাসী
বাবুল আক্তার গ্রেপ্তার
মিরপুর থানা পরিদর্শন করলেন পুলিশ সুপার
বিএডিসির কর্মকর্তা করোনায় মৃত্যু
টিকটক-লাইকিতে আসক্তি নিয়ে ঝগড়া, স্ত্রীকে হত্যার পর থানায় আত্মসমর্পণ
চিলাহাটি জে.ইউ.ফাজিল মাদ্রাসায় দোয়া ও ইফতার অনুষ্ঠিত
মিয়ানমারে সেনা ঘাঁটি দখল করে আগুন ধরিয়ে দিল বিদ্রোহীরা
বিসিএস ক্যাডার পরিচয়ে এক ডজন বিয়ে করলো তরুণী
রিকশাচালকের ৬০০ টাকা কেড়ে নেয়ায় পুলিশের তিন সদস্য সাময়িক বরখাস্ত!
চিলাহাটিতে অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী, বস্ত্র ও টাকা বিতরণ
নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পৃথিবীর দিকে তীব্র গতিতে ধেয়ে আসছে চীনা রকেটের ১০০ ফুট অংশ
কুষ্টিয়া পৌরসভার কর কর্মকর্তা বরখাস্ত নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম ইসলাম ওএসডি
পুলিশকে চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রাখলেন রিকশাওয়ালা
একাধিক নারীর সঙ্গে বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল হেফাজত নেতা জাকারিয়ার
এসআইয়ের ড্রয়ার থেকে ঘুষের আড়াই লাখ টাকা বের করলেন এএসপি