শিরোনাম:
ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮

Bijoynews24.com
মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২০
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | শিরোনাম | স্বাস্থ্য সংবাদ » ডোমার উপজেলার সীমান্ত এলাকার প্রায় ৪০ হাজার মানুষ স্বাস্থ্য সেবার থেকে বঞ্চিত
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | শিরোনাম | স্বাস্থ্য সংবাদ » ডোমার উপজেলার সীমান্ত এলাকার প্রায় ৪০ হাজার মানুষ স্বাস্থ্য সেবার থেকে বঞ্চিত
মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ডোমার উপজেলার সীমান্ত এলাকার প্রায় ৪০ হাজার মানুষ স্বাস্থ্য সেবার থেকে বঞ্চিত

---
রুহানা ইসলাম ইভা.

 

ডোমার উপজেলা প্রতিনিধিঃ বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারনে দেশের মানুষ এক ভয়াবহ পরিস্থিতির সাথে লড়াই করে চলছে। বেঁচে থাকার জন্য বসবাস করা বা খাদ্যই শুধু প্রয়োজনীয় নয়। সুস্থ সুন্দর জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজন সুরক্ষিত থাকা। এবং বর্তমানে এমন একটি পরিস্থিতির সাথে মানুষ লড়াই করে চলছে, যেখানে একটু অসচেতনতার কারনে ঝড়ে পরতে পারে হাজারো প্রাণ।
নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলা ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। ডোমার উপজেলায় কিছু কিছু হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে স্বল্প পরিসরে চিকিৎসা থাকায় সেখানকার মানুষ একটু হলেও স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত নয়। কিন্তু, উক্ত উপজেলার প্রায় ৪০ হাজার মানুষ দীর্ঘ ৪৯ বছর যাবত উন্নত স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে। দেশ স্বাধীনের পূর্বে ভোগডাবুরী ইউপির চিলাহাটি বাজার এলাকায় দুই দানশীল ব্যক্তি জমিদান করে সেখানে গড়ে তুলে দুস্থ ও নি¤œ আয়ের অসহায় মানুষের জন্য চিকিৎসাকেন্দ্র। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর সেই কেন্দ্রটি হয়ে যায় চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র। ৪৯ বছরে কোন দিন এই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এম.বি.বি.এস.ডাক্তারের পোস্ট থাকলেও তারা কোনদিন এলাকার মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করেননি। যার ফলে উক্ত উপজেলার বেশকয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় হাজার হাজার মানুষ আজ স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে। সাময়িকভাবে এম.বি.বি.এস. ডাক্তার স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে আসলেও ৭ দিনের বেশি থাকে না। কারন, উক্ত ইউনিয়নগুলোতে শহরের মতো তেমন কোন সুযোগ-সুবিধা নেই। শহরে থেকে একটি ডাক্তার যে সুবিধা পাবে, গ্রামাঞ্চলে তা পাবে না। যার কারনে এম.বি.বি.এস. ডাক্তার আসলেও এখার থেকে চলে যাওয়ার জন্যে তরিঘরি করে অন্যত্র ট্রান্সফার নিয়ে নেন। তবে, সবাই শুধু নিজের সুবিধাটাই দেখে না। কিছু কিছু মানুষ আছে যারা নিজের কথা নয়, বরং গ্রামাঞ্চলের রোগীর কথা ভাবে। তেমনি চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে এইরকম কয়েকজন সরকারী ডাক্তার এসেছিল, যারা দীর্ঘদিন যাবত অক্লান্ত পরিশ্রম করে সাধারন মানুষদের সু-চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। তবে তারা অবসরে যাওয়ার পর চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে তালা ঝুলতে থাকে। তারপর অনেকেই এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আসলেও বেশিদিন কাঁটাতে পারেনি এখানে। তবে, ভোগডাবুরী ইউনিয়নের চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে, সেই স্থানে ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের কাজ চলছে প্রায় ৭/৮ মাস যাবত। উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের স্থানে কাজ চলার ফলে ভোগডাবুরী সহ পাশ্ববর্তী কেতকীবাড়ী ইউনিয়নের সাধারণ মানুষরা আজ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত। অপরদিকে একই ইউনিয়নের পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটিও চলছে জোড়াতালী দিয়ে। না আছে ডাক্তার না আছে ঔষধ। এলাকাবাসীর সূত্রে জানা গেছে, ডোমার উপজেলার ভোগডাবুরী ও কেতকীবাড়ী এই ২টি ইউনিয়ন সহ পার্শ¦বর্তী পঞ্চগড় জেলার দেবিগঞ্জ উপজেলার নিউ বাংলা সহ চিলাহাটি এলাকা সহ প্রায় ৬ লক্ষাধিক সাধারন মানুষের ভরসা ছিল চিলাহাটি উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সহকারী ডাক্তারদের উপর। এই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে প্রতিদিন শত শত সাধারন মানুষ আসে চিকিৎসা সেবার জন্য। প্রতিবছর এই উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রেটিতে যে পরিমান সরকারী ঔষধ সরবারহ করা হয়, সেই ঔষধ দিয়ে এলাকার নি¤œআয়ের মানুষদের সেবা প্রদান করা হতো। দীর্ঘ ৪৯ বছর যাবত ভোগডাবুরী ইউনিয়নে একটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও একটি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র থাকলেও প্রকৃত স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত এলাকার সাধারন মানুষ। অপরদিকে, ভোগডাবুরী ও কেতকীবাড়ী ইউনিয়নের পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে কোন প্রকার উন্নতমানের ডাক্তার না থাকায় উন্নত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত রয়েছে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। প্রতি ইউনিয়নে ওয়ার্ড ভিত্তিক কমিউনিটি ক্লিনিক থাকলেও মানসম্মত চিকিৎসা ও ঔষধ না থাকায় সাধারন মানুষ পড়েছে বিপাকে।
এ ব্যপারে ডোমার উপজেলা বোড়াগাড়ী হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও প.প.কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ ইব্রাহিম-এর সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,“এই করোনা পরিস্থিতিতে এলাকার মানুষদের সবসময় সচেতন থাকার কথা বলা হচ্ছে। প্রত্যেকটি ব্যক্তি যদি একটু সাবধানতা বজায় রেখে চলে, তাহলে উক্ত  ডামার উপজেলার মানুষ এই করোনা ভাইরাস থেকে দুরে থাকবে। অপরদিকে, উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের স্থানে মা ও শিশু স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের নির্মান কাজ হওয়ায় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কার্যক্রম গুটিয়ে নিয়েছে। তবে আগামিতে নির্মান কাজ শেষ হলে হয়ত একটি কক্ষে এই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চিকিৎসা সেবা চালু হতে পারে”।
বর্তমান সরকার গ্রাম অঞ্চলের সাধারন মানুষের স্বাস্থ্য সেবার মানকে উন্নত করার লক্ষে ব্যাপক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ এই এলাকার নি¤œ আয়ের মানুষরা প্রশাসনের সু-দৃষ্টির আওতায় না থাকায় তারা স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগের উর্ধ্বতন কর্তিপক্ষের সু-দৃষ্টি দেওয়া একান্ত প্রয়োজন।



পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
সাংবাদিক খোকন আর নেই : কুষ্টিয়া সিটি প্রেসক্লাবের শোক
মুসলমানদের নিকট মসজিদুল আকসা এতোটা গুরুত্বপূর্ণ কেন ?
গভীর রাতে মসজিদে কিশোরীর সঙ্গে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ ইমাম আটক
শতাধিক রকেট হামলা হামাসের, ২ ইসরাইলি নিহত
বৈদ্যুতিক ট্রেনের যুগে প্রবেশ করল বাংলাদেশ
ক্ষোভে ফুঁসছে মুসলিম বিশ্ব
অসামাজিক কার্যকলাপ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে আটকে বিয়ে দিলেন এলাকাবাসী
বাবুল আক্তার গ্রেপ্তার
মিরপুর থানা পরিদর্শন করলেন পুলিশ সুপার
বিএডিসির কর্মকর্তা করোনায় মৃত্যু
টিকটক-লাইকিতে আসক্তি নিয়ে ঝগড়া, স্ত্রীকে হত্যার পর থানায় আত্মসমর্পণ
চিলাহাটি জে.ইউ.ফাজিল মাদ্রাসায় দোয়া ও ইফতার অনুষ্ঠিত
মিয়ানমারে সেনা ঘাঁটি দখল করে আগুন ধরিয়ে দিল বিদ্রোহীরা
বিসিএস ক্যাডার পরিচয়ে এক ডজন বিয়ে করলো তরুণী
রিকশাচালকের ৬০০ টাকা কেড়ে নেয়ায় পুলিশের তিন সদস্য সাময়িক বরখাস্ত!
চিলাহাটিতে অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী, বস্ত্র ও টাকা বিতরণ
নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পৃথিবীর দিকে তীব্র গতিতে ধেয়ে আসছে চীনা রকেটের ১০০ ফুট অংশ
কুষ্টিয়া পৌরসভার কর কর্মকর্তা বরখাস্ত নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম ইসলাম ওএসডি
পুলিশকে চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রাখলেন রিকশাওয়ালা
একাধিক নারীর সঙ্গে বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল হেফাজত নেতা জাকারিয়ার