শিরোনাম:
ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

Bijoynews24.com
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রংপুর | শিরোনাম | স্বাস্থ্য সংবাদ » ডোমার উপজেলায় আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য ঠান্ডা জনিত রোগ বাড়ছে
প্রথম পাতা » জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রংপুর | শিরোনাম | স্বাস্থ্য সংবাদ » ডোমার উপজেলায় আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য ঠান্ডা জনিত রোগ বাড়ছে
রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ডোমার উপজেলায় আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য ঠান্ডা জনিত রোগ বাড়ছে

---
রুহানা ইসলাম ইভা.

 

 

ডোমার উপজেলা প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ ৬ ঋতুর দেশ। গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত ও বসন্ত। প্রতিটা ঋতুরেই নিজ নিজ সৌন্দর্য আছে। এবং সেই সৌন্দর্যের মোহোতে মুগ্ধ হয়ে উঠে পুরো দেশ। প্রতিটা ঋতুর সুন্দর রূপ দেখে মানুষ যেমন মুগ্ধ হয়, তেমনি ঋতুর পরিবর্তনের কারনে বিভিন্ন রোগে ভুগতে হয় মানুষদের। এবং সবথেকে বেশি শীতকালে বিভিন্ন ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে, ঘরে পরে থাকতে হয় দেশের মানুষদের। শহরাঞ্চলের মানুষরা একটু হলেও সাবধানতা বজায় রাখতে সক্ষম। কিন্তু, গ্রামাঞ্চলের মানুষরা এখনও পুরোপুরি সচেতন হয়ে উঠতে পারেনি। যার কারনে তাদের বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে হয়।
নীলফামারী জেলার ৬ টি উপজেলায় খেটে খাওয়া সাধারন মানুষদের সংখ্যা সবথেকে বেশি। দৈনিক হাজিরা খাটা, কৃষিকাজ করা, অন্যের বাসায় কাজ করা ইত্যাদি কাজ করে থাকে। অন্যের সান্নিধ্যে কাজ করায় তারা শুধু পরিবারের সদস্যদের চিন্তা করে যে কিভাবে পরিবারের বাকি সদস্যদের পেট ভরাবে। এবং এই চিন্তার কারনে তারা নিজেদের শরীরের দিকে নজর দেওয়ার কথা ভাবে না। বিশেষ করে শীতের মৌসুমে তারা বিভিন্ন ঠান্ডা জনিত জটিল রোগে আক্রান্ত হয়। অসাবধানতা ও অসচেতনতার কারনে নি¤œ আয়ের শিশু ও বৃদ্ধারা সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়। শহরাঞ্চলের মানুষরা সবসময় সচেতন থাকে এবং তারা যদি অসুস্থ্যতার কোন আভাস পায় তাহলে তড়িৎগতিতে তারা ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহন করেন। কিন্তু, নি¤œআয়ের গ্রামাঞ্চলের মানুষরা সেই দিকে বেশি নজর দেয় না। যার কারনে তাদের সব থেকে বেশি নাম না জানা বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগতে হয়। এ ব্যপারে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প.প.কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ ইব্রাহিম-এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, “বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারনে দেশের অবস্থা খুব একটা ভাল নেই। তার কারন সাধারন মানুষদের মধ্যে সচেতনতাবোধ নেই। করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়ার একমাত্র উপায় হলো, সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা এবং অন্যের সংস্পর্শে না আসা। কিন্তু, এই সামান্য কাজটুকু সাধারন মানুষরা করতে পারছেনা। তারা না ভাবছে নিজের কথা আর না ভাবছে পরিবারের সদস্যদের কথা। বিভিন্ন হাট-বাজারে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হলেও তারা সেই দিকে নজর দিয়ে চলে না। বরং এরিয়ে চলে। জানা গেছে, শীতের মৌসুমে নাকি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ আরো বেশি হবে। তাই দেশের সকল মানুষদের একটা পরামর্শ দেই, তারা যদি একটু সচেতনভাবে চলে তাহলে শুধু করোনা ভাইরাস থেকে নয় বরং সব রোগ থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব”।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
নারী হাফেজকে ধর্ষণের মামলায় কারাগারে মাদ্রাসা শিক্ষক
‘লকডাউনের’ প্রথম দিন রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৪০৩
লঘুচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত
পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা, ফেরির মাস্টার বরখাস্ত
লকডাউনের প্রথম সকালে ট্রাকের ধাক্কায় ঝরল ৬ প্রাণ
কঠোর লকডাউন শুরু, শূন্য রাজপথ
চেতনা নাশক ইনজেকশন পুশ করে রোগীদের ধ”র্ষ’ণ করতো এই ডাক্তার!
করোনার ঝুঁকি সত্ত্বেও ঢাকা ছাড়ছে মানুষ, মানছে না স্বাস্থ্যবিধি
গতবারের চেয়েও কঠোর ভাবে মাঠে নামছে সেনাবাহিনী-বিজিবি
১৯ দিনের ছুটিতে দেশ
ভূমধ্যসাগরে নৌডুবিতে ১৭ বাংলাদেশির সলিল সমাধি
কঠোর বিধি-নিষেধের আওতামুক্ত থাকছে যেসব পণ্য ও প্রতিষ্ঠান
বিদেশযাত্রীদের জন্য অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলবে
একদিনে ভারতে করোনায় ৩ হাজার ৯৯৮ জনের মৃত্যু
মহামারির মাঝে সারা দেশে ঈদ উদযাপন
আজ পবিত্র ঈদুল আজহা
নিউ লাইফ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ উপহার বিতরণ
বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে সরকারি নির্দেশনা না মানায় তিন সিএন্ডএফ প্রতিনিধিকে অর্থদন্ড
কুষ্টিয়ায় বাথরুমে ওড়নায় ঝুলছিল মা-ছেলের লাশ
বিএমএসএফের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে ১২ সদস্যের অন্তর্ভুক্তি