শিরোনাম:
ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

Bijoynews24.com
সোমবার, ৫ অক্টোবর ২০২০
প্রথম পাতা » অপরাধ চিত্র | ক্রাইম রির্পোট | জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | রাজশাহী | শিরোনাম » সন্তানদের ভয় দেখিয়ে জিম্মী করে বগুড়ায় চিকিৎসকের বাড়িতে ঢুকে ৫ লক্ষাধিক টাকা লুট
প্রথম পাতা » অপরাধ চিত্র | ক্রাইম রির্পোট | জাতীয় সংবাদ | বক্স্ নিউজ | রাজনীতি | রাজশাহী | শিরোনাম » সন্তানদের ভয় দেখিয়ে জিম্মী করে বগুড়ায় চিকিৎসকের বাড়িতে ঢুকে ৫ লক্ষাধিক টাকা লুট
সোমবার, ৫ অক্টোবর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

সন্তানদের ভয় দেখিয়ে জিম্মী করে বগুড়ায় চিকিৎসকের বাড়িতে ঢুকে ৫ লক্ষাধিক টাকা লুট

---
বগুড়া অফিস :  বগুড়া শহরে চিকিৎসক দম্পত্তির বাড়িতে প্রবেশ করে লকার ভেঙ্গে প্রায় ৫ লক্ষাধিক টাকা লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল রোববার দুপুর ১২টার দিকে শহরের দক্ষিণ নাটাইপাড়া এলাকার চিকিৎসক দম্পতি ডা: মো: হাবিবুর রহমান (রতন) ও ডা: কানিজ ফাতেমা (জলি) নিজস্ব বাড়িতে এই ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, বগুড়া শহরের দক্ষিণ নাটাইপাড়ায় একটি পাঁচতলা বাড়ির তিন তলায় পরিবার নিয়ে বসবাস করেন বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারি অধ্যাপক (ই,এন,টি) ডা: মো: হাবিবুর রহমান (রতন) ও বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ( গাইনি বিভাগ) ডা: কানিজ ফাতেমা (জলি) দম্পতি। গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে তাদের ৩ সন্তান ছাড়া ওই বাড়িতে কেউ ছিল না। এই সুযোগে ১৭-১৮ বছর বয়সী ২ দুর্বৃত্ত বাড়ির তিন তলায় যায়। এরপর দরজা খোলা পেয়ে ওই দম্পতির বাড়ির ভিতরে ঢুকে পড়ে । এরপর তাদের বড় ছেলে এস.এস.সি পরীক্ষার্থী জয় ও ৮ম শ্রেনিতে পড়–য়া কন্যা ¯েœহার ঘরের বাইরে সিটকানি আটকে রেখে তাদের ঘরের মধ্যে আটকে রেখে জিম্মি করে রাখে। এরপর টিভি দেখতে থাকা অপর শিশু সন্তানকেও নজরে রেখে তারা ডা: রতন ও ডা: জলির শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে লকার ভেঙ্গে ফেলে প্রায় ৫ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে পালিয়ে যায়।

ডা: রতন জানান, শহরের ঠনঠনিয়ায় প্রভাতি নামে একটি নিজস্ব ক্লিনিকও রয়েছে তাদের। সেখানেও তারা নিয়মিত রোগী দেখেন। বাড়িতে ঢোকার আগে তারা কৌশলের আশ্রয় নেয়। কৌশল অনুযায়ী দৃর্বৃত্তদের একজন ঘটনার ঘটানোর ঘন্টা দেড়েক আগে অন্তত: ৫ বার তার মোবাইলে ফোন করে বলে যে প্রভাতি ক্লিনিকে তারা গুরুতর অসুস্থ একজন রোগী এনেছে। এ কথা শুনে তিনি ক্লিনিকে গিয়ে দেখেন ওই রোগী নেই, চলে গেছে। এ দিকে একই সময়ে তার সহধর্মিণী ডা: জলিকেও ৪-৫ বার ফোন করে রোগী দেখতে ওই ক্লিনিকে যেতে বলে। তাদের ফোন পেয়ে তিনিও বাড়ি থেকে ক্লিনিকে যান। এই সুযোগে দুই দুর্বৃত্তরা বাড়িতে ঢুকে তাদের দুই সন্তানকে জিম্মি করে টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

ঘটনাটি জানতে পেরে বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী ও সদর থানার ওসি মো: হুমায়ুন কবীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ ব্যাপারে ওসি হুমায়ুর কবীর জানিয়েছেন, এ ঘটনায় জড়িত অপরাধীদের সনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

বগুড়ায় জাতীয় ভিটামিন এ

প্লাস ক্যাম্পেইন’র উদ্বোধন

বগুড়ায় ৫ লক্ষাধিক শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে উদ্বোধন করা হলো জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন। গতকাল রোববার সকালে বগুড়া পৌরসভায় জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক মোঃ জিয়াউল হক। এ সময় পৌর মেয়র এ্যাড. একেএম মাহবুবর রহমান, ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজার রহমান তুহিন উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বগুড়া পৌরসভার কাউন্সিলর তরুন কুমান কবিরাজ, মোঃ আব্দুর রহিম প্রামানিক, আরিফুর রহমান, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডা. মোঃ মুনসুর রহমান, রোটারী ক্লাব অব বগুড়ার পাস্ট প্রেসিডেন্ট মোঃ মোস্তাফিজার রহমানসহ সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়া পৌরসভার স্বাস্থ্য পরিদর্শক মোঃ শাহ আলী খান জানান, এবার বগুড়া পৌরসভার অন্তর্গত ২৭ হাজার শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর টার্গেট নিয়ে জাতীয় ভিটামিন এ ক্যাম্পেইন শুরু করা হয়েছে। এরমধ্যে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৩ হাজার ২৪৭ জন শিশুকে নীল রঙের ভিটামিন এ ক্যাপসুল ও ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ২৩ হাজার ৭৭১ জন শিশুকে লাল রঙের ভিটামিন এ ক্যাপসুল মোট ২৭ হাজার ১৮ জন শিশুকে ভিটামিন এ  ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বগুড়া পৌরসভার ওয়ার্ড ভিত্তিক মোট ১০৩টি কেন্দ্র ছাড়াও ২৪টি  ভ্রাম্যমান কেন্দ্রের মাধ্যমে শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে। এসব কেন্দ্রে মোট ২৮০ জন কর্মী কাজ করছেন।

রোটারী ক্লাব অব বগুড়া : রোটারী ক্লাব অব বগুড়া’র উদ্যোগে জাতীয় ভিটামিন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন রোটারী ক্লাবের সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান মোস্তাফিজার রহমান। শহরের সাতমাথায় উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন রোটারিয়ান অনন্য রকিব, সোহেলী আকতার ছালমা, শাহীন কাদির, রেজাউল হক, মোরশেদা খাতুন, চন্দন কুমার, মুনসুর রহমান, আবু তাহের প্রমুখ।

রোটার‌্যাক্টর ক্লাব অব বগুড়া নিউটাউন : রোটারেক্টর ক্লাব অব বগুড়া নিউটাউন এর উদ্যোগে জাতীয় ভিটামিন “এ” প্লাস ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন অত্র ক্লাবের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক। শহরের সাতমাথায় ক্যাম্পেইনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রোটার‌্যাক্টর ক্লাব অব বগুড়া নিউটাউন এর আর সিসি রোটারিয়ান নাবিউল হক নয়ন, মির্জা শাহ রেজা, পিপি আইনুর ইসলাম, সোহাগ, নাজমুল হুদা, আতিক, তাইজুল ইসলাম সুমনসহ সদস্য বৃন্দ।

আদমদিঘী উপজেলা শ্রমিকলীগ নেতার জামিন নামঞ্জুর

বগুড়ার সান্তাহার বাফার গুদাম হতে ১১

কোটি টাকার সার আত্মসাত মামলা

বগুড়ার সান্তাহারে বিসিআইসি’র আওতাধীন বাফার গুদাম হতে পরস্পর যোগ সাজসে দুর্নীতির মাধ্যমে ১১ কোটি ৩ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের সার আত্মসাতের মামলার আসামি মেসার্স রাজা এন্টারপ্রাইজের প্রোপাইটর ও আদমদীঘি উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের আহবায়ক রাশেদুল ইসলাম (রাজা)’র জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করা হয়েছে রাজা আদমদীঘি উপজেলার সান্দিরা গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে।

গতকাল রোববার বগুড়ার সিনিয়র স্পেশাল জজ নরেশ চন্দ্র সরকার হাজতী ওই আসামির জামিনের আবেদন শুনানী অন্তে জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে আদেশ প্রদান করেন। দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় বগুড়ার সহকারী পরিচালক মোঃ আমিনুল ইসলাম কর্তৃক দায়েরকৃত এই মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে যে, গত ২০১৬ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি হতে ১৪ নভেম্বরের মধ্যে বিসিআইসি’র আওতাধীন সান্তাহার বাপার গুদামে সরকারী সার পরিবহণের জন্য মেসার্স নর্থ সাউথ ডেল্টা শিপিং এন্ড ট্রেডিংকে ঠিকাদার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। গুদামে সার খামাল করার দায়িত্ব পান রাশেদুল ইসলাম (রাজা)। ওই সময় সান্তাহার বাফার গুদামের ইনচার্জ নবির উদ্দিনের সাথে যোগসাজসে ১১ কোটি ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৪০১ টাকা মূল্যের সার গুদামজাত না করে আসামিরা আত্মসাত করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় বগুড়ার এডি মোঃ আমিনুল ইসলাম, সান্তাহার বাফার গুদামের ইনচার্জ মোঃ নবির উদ্দিন মেসার্স নর্থ সাউথ ডেল্প শিপিং এন্ড ট্রেডিং এর নির্বাহী পরিচালক মোঃ মশিউর রহমান খান ও হাজতি আসামি রাশেদুল ইসলাম রাজাকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন।

মামলাটি পরিচালনা করেন বাদি রাষ্ট্র পক্ষে দুদকের পিপি এড. এস এম আবুল কালাম আজাদ এবং আসামি পক্ষে এড. শেখ কুদরত-ই-ইলাহী (কাজল) এড. আবু আসাদ ও এড. আবু নূর মোহাম্মদ ওয়াহিদ।

বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ স্থাপনা গুড়িয়ে দিয়ে

৩ কোটি টাকার ক্ষতিসাধন করেছে

আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বুলডোজার দিয়ে বগুড়া স্টেশন রোডের শতাব্দী পেট্রোলিয়ামের ডিপো ও স্থাপনাদি গুড়িয়ে দিয়ে ৩ কোটি টাকার ক্ষতিসাধন করেছে। গতকাল রোববার সকালে বগুড়া প্রেসক্লাবে এমন অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেন শহরের কানছগাড়ী এলাকার মৃত এম এ কুদ্দুসের ছেলে এমএ মোমিন দুলাল।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, রেলওয়ের ওই জায়গাটি তার বাবা মরহুম এমএ কুদ্দুস তিন যুগ আগে বাংলাদেশ রেলওয়ের কাছ থেকে বাৎসরিক খাজনার চুক্তিতে লিজ নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। তার বাবার অবর্তমানে তারা বাৎসরিক ৮০ হাজার টাকা খাজনা দিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। এমতাবস্থায় হঠাৎ করে তাদের কাছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ মৌখিকভাবে দিগুণ খাজনা দাবি করে। এ ব্যাপারে রেল কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করতে গেলে তারা অসহযোগিতা করে বলে অভিযোগ করা হয়। এ অবস্থায় তাদের বাবার নামে লিজটি বাতিল করে তাদের নামে সার্টিফিকেট মামলা করা হয়। প্রতিকার চেয়ে তারাও আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা চলাবস্থায় রেল কর্তৃপক্ষ ২০০৯ সালে একতরফা রায় নেয়। যার আপিল জজকোর্টে গৃহীত হয়েছে।

এসময় উল্লেখ করে বলা হয়, গত ১৫ সেপ্টেম্বর তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লাল চি‎হ্ন দিয়ে ক্রস দেয়া শুরু করলে তারা আদালতের কাছে নালিশ করেন। নালিশ শুনানীর পর আদালত ১৭ সেপ্টেম্বর রেলওয়েকে ৭ দিনের মধ্যে শো-কজের আদেশ দেন। এই আদেশ স্থানীয় রেলের কানুনগো গ্রহণও করেন। শো-কজের নোটিশ পেয়েও রেল কর্তৃপক্ষ ২১ সেপ্টেম্বর আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে তাদের সমস্ত স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়। ঐ স্থাপনা সহ বিভিন্ন মালামাল গুড়িয়ে দেয়। এ সময় তিনি  জ্ঞান হারানোর অবস্থায় পতিত হন। ঐ অবস্থায় পুলিশি ভয় দেখিয়ে তার কাছ থেকে অসম্পূর্ণ জব্দকৃত মালামালের স্বাক্ষর নেয়া হয়। অভিযোগ করে বলা হয়, বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়ার সময় জেনারেটর, এলপি গ্যাস সিলিন্ডার, তেলের ট্যাঙ্কার, মূল্যবান কাঠসহ প্রায় ৩ কোটি টাকার মালামাল ট্রাকে করে লুটপাট করা হয়।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে এম এ মোমিন দুলাল ছাড়াও বোন আনোয়ারা বেগম, ভাই মোঃ আব্দুল মান্নান, ও মোঃ আব্দুল মোন্নাফ উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়ায় নতুন করে ১০

জন করোনায় আক্রান্ত

বগুড়ায় নতুন করে আরও ১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ২৪ জন। গতকাল বগুড়া সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. ফারজানুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডা. ফারজানুল ইসলাম জানান, শনিবার বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ১৮৯ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ১০ জনের পজিটিভ আসে। এ ছাড়া টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৭টি করোনার নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে সবক’টি নেগেটিভ আসে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ৯জন সদর উপজেলার আর ১জন দুপচাঁচিয়া উপজেলার। এই নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত ৭ হাজার ৬৬৭ জন, মোট সুস্থ ৬ হাজার ৮০৯ জন, মোট মৃত্যু ১৮৬ জনের, বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত রয়েছেন ৬৭২ জন।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
নারী হাফেজকে ধর্ষণের মামলায় কারাগারে মাদ্রাসা শিক্ষক
‘লকডাউনের’ প্রথম দিন রাজধানীতে গ্রেপ্তার ৪০৩
লঘুচাপের প্রভাবে সাগর উত্তাল, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত
পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা, ফেরির মাস্টার বরখাস্ত
লকডাউনের প্রথম সকালে ট্রাকের ধাক্কায় ঝরল ৬ প্রাণ
কঠোর লকডাউন শুরু, শূন্য রাজপথ
চেতনা নাশক ইনজেকশন পুশ করে রোগীদের ধ”র্ষ’ণ করতো এই ডাক্তার!
করোনার ঝুঁকি সত্ত্বেও ঢাকা ছাড়ছে মানুষ, মানছে না স্বাস্থ্যবিধি
গতবারের চেয়েও কঠোর ভাবে মাঠে নামছে সেনাবাহিনী-বিজিবি
১৯ দিনের ছুটিতে দেশ
ভূমধ্যসাগরে নৌডুবিতে ১৭ বাংলাদেশির সলিল সমাধি
কঠোর বিধি-নিষেধের আওতামুক্ত থাকছে যেসব পণ্য ও প্রতিষ্ঠান
বিদেশযাত্রীদের জন্য অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলবে
একদিনে ভারতে করোনায় ৩ হাজার ৯৯৮ জনের মৃত্যু
মহামারির মাঝে সারা দেশে ঈদ উদযাপন
আজ পবিত্র ঈদুল আজহা
নিউ লাইফ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ উপহার বিতরণ
বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে সরকারি নির্দেশনা না মানায় তিন সিএন্ডএফ প্রতিনিধিকে অর্থদন্ড
কুষ্টিয়ায় বাথরুমে ওড়নায় ঝুলছিল মা-ছেলের লাশ
বিএমএসএফের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে ১২ সদস্যের অন্তর্ভুক্তি