শিরোনাম:
●   কাফন মিছিলের পর শাবিতে এবার গণঅনশনের ডাক ●   NID জালকারী হাজির কারণে কুষ্টিয়া সদরে নৌকার ভোট বিপর্যয় ! ●   কুষ্টিয়ায় পরিবেশ বান্ধব জিকজাক ইট ভাটার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ওরা কারা ? ●   কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নবাসী তাদের প্রিয় নেত্রী সম্পা মাহমুদকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার দাবি জানিয়েছে ●   ঢাকাসহ সারাদেশে রেড অ্যালার্ট জারি ●   অবশেষে ‘‘সৈয়দ মাছ-উদ-রুমী সেতুুর’’ (গড়াই সেতু) টোলে পে-অর্ডারর জাতিয়াতির টাকা ফেরৎ দিল ব্যাংক ●   কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় মশাল প্রতীকের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি ●   দৌলতপুরে কৃষি, ব্যাংক কর্মকর্তার ১৩ বছরের কারাদণ্ড ●   ‘একটি গোষ্ঠী ঘটনার জন্ম দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত করতে চায়’ ●   আবরারের মাও যেন বলতে পারে, ‘ন্যায়বিচার পেয়েছি
ঢাকা, রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ৯ মাঘ ১৪২৮

Bijoynews24.com
বৃহস্পতিবার, ১৭ মার্চ ২০১৬
প্রথম পাতা » বিবিধ » বানরের আদালত
প্রথম পাতা » বিবিধ » বানরের আদালত
বৃহস্পতিবার, ১৭ মার্চ ২০১৬
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

বানরের আদালত

---বিজয় নিউজ:

:রহীম শাহ :এমন একটা সময় ছিল, যখন আমার বাবা বনজঙ্গলে ঘুরে বেড়াতেন। নানা পশুপাখির কত কাণ্ড দেখতেন! ওদের বুদ্ধি দেখে বাবা আশ্চর্য হয়ে যেতেন।

একদিন বাবা চন্দ্রনাথের গভীর জঙ্গলে অনেক আশ্চর্যজনক দৃশ্য দেখলেন। সেসব গল্পের কথা তিনি আমাদের বলতেন। আমরা তার সেসব গল্প আগ্রহ নিয়ে শুনতাম।

বাবা জঙ্গলের জীবজন্তুদের ভালোবাসতেন। আর এদের হত্যা করাটা খুব ঘৃণা করতেন। তবে আত্মরক্ষা আর খাবারের প্রয়োজন হলে সেটা ভিন্ন কথা। জীবজন্তুর চলাফেরা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করতেন বাবা। আর তাদের আচরণ বেশ গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করতেন। বাবা বলতেন, অনেক প্রাণী মা-বাবা বাচ্চাসহ পরিবারের মতো বসবাস করে। অনেকে আবার দলবন্ধ হয়ে থাকতে পছন্দ করে।

গভীর জঙ্গলে কয়েকদিন ঘোরাঘুরির পর বাবা আর তার সঙ্গীদের নিয়ে বেরিয়ে এলেন। তারপর তারা খোলামতো একটি জায়গায় জড়ো হলেন। জায়গাটা একটি জলাশয়ের কাছেই।

জলাশয়ের কাছাকাছি জায়গায় কয়েকটি বসতবাড়ি। পাশে একটি সরকারি বাংলোও ছিল। এমন মনোরম জায়গা দেখে বাবা আর তার সঙ্গীরা বেশ আনন্দিত হয়ে উঠলেন। তারা ভাবলো, এবার তারা লোকজনের সঙ্গ পাবেন, আর টাটকা মাছ ও শাকসবজি খেতে পারবেন। সপ্তাহ শেষে তারা আবার জঙ্গলে ফিরে যাবেন। যাওয়ার সময় তারা ডাল, আলু মরিচ সঙ্গে নিয়ে যাবেন। বাবাও খুব খুশি হয়েছিলেন।

তারা এক সময় বাংলোয় গিয়ে উঠলেন। বাবা একটা বড় আরাম চেয়ারে বসেছিলেন। হঠাৎ করে মনে হলো, কেউ যেন তীক্ষè স্বরে ডাকছে, শব্দটা বোধহয় লম্বা জলাশয়ের দিক থেকে আসছিল।

বাবার এক সঙ্গী, এতক্ষণ যিনি বাইরে হাঁটাহাঁটি করছিলেন, তিনি দৌড়ে এলেন তার কাছে। বললেন, ‘ভাইসাহেব, একটু তাড়াতাড়ি আসুন, দেখে যান কী অদ্ভুত দৃশ্য।’

বাবা তাড়াতাড়ি বেরিয়ে পড়লেন। জলাশয়ের কাছে গিয়ে লোকটা হাত তুলে নদীর ওপারের একটা বটগাছের দিকে দেখিয়ে দিলেন।

বাবা দেখলেন অদ্ভুত একটা দৃশ্য। বটগাছের ডালগুলোয় অনেক বানর বেশ চুপচাপ বসে আছে। তারা একটা আদেশের অপেক্ষায় যেন। একটা উঁচু ডালে বয়স্ক একটা বানর। অপর বানরগুলোর দিকে মুখ করে আছে সে। আদেশদাতার দৃশ্যটা দেখেই বোঝা গেলো একটি সভা হচ্ছে ওখানে।
বানরগুলো মাঝারি আকারের। লালচে বাদামি রঙের সব বানর। উপরের ডালে বসেছে বয়স্ক বানরটা। তবে তার কিছু কেশ ছাই রঙের। লেজ অর্ধেক নেই। তার কোঁচকানো মুখ দেখে মনে হলো, যেন একটা বয়স্ক জ্ঞানী লোক।

সব বানর বয়স্ক বানরটার দিকে তাকিয়ে আছে। একেবারে নিচের দিকের একটা ডালে ছোট্ট কম বয়সী একটা বানর দল থেকে বেরিয়ে আলাদা হয়ে বসলো। বানরটা হইচই করছিল। দুটো বানর এসে সেটাকে ওদের লম্বা ও পেশিবহুল হাত দিয়ে শক্ত করে আঁকড়ে ধরলো।
হঠাৎ বয়স্ক বানরটা আটকানো বানরটির উদ্দেশে কী একটা আদেশ করলো। অপর বানরগুলো নীরবতা ভেঙে শুরু করলো প্রচণ্ড চেঁচামেচি। বন্দি বানরটাকে নিচে নামালো দুটো বানর, যেগুলো ওটাকে ধরে রেখেছিল। তারপর বানর দুটো ছোট বানরটার হাত-পাগুলো চেপে ধরে একটু দোল খাওয়ালো। তারা তাকে দূরে জলের মধ্যে নিক্ষেপ করলো।

কী একটা দাবি জানানোর জন্য সব বানর চেঁচামেচি শুরু করলো একসঙ্গে। তারা সবাই নেমে এলো জলাশয়ের পাড়ে। জলে ফেলা বানরটাকে কেউ সাহায্য করবে না। দেখে মনে হলো, সে তীরে উঠতে পারছে না। সে ভালো সাঁতার কাটতে পারে। সে তীরে ওঠার চেষ্টা করছে আর অন্য বানরগুলো তাকে জলের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। সে জলের নিচ দিয়ে সাঁতরে উঠতে চাইলো। বারবার চেষ্টা করলো পাড়ে উঠতে। অন্যরা তাকে অনুসরণ করছিল, যাতে সে কূলে উঠতে না পারে। শিগগিরই সব বানর অদৃশ্য হয়ে গেলো ওখান থেকে।

বাবা অবাক হয়ে দেখলেন বানরটা নদীর অপর পাড়ে সাঁতরে ওঠার চেষ্টা করেনি। অথচ সে দিকে কোনো পাহারা নেই। বাবা ভাবলো সম্ভবত বয়স্ক বানরটি ওই দলের নেতা, কম বয়সী বানরটা হয়তো বানরদের আইন অমান্য করেছে। তাই তাকে এ শাস্তি দেওয়া হলো।

ছোট বানরটাকে তারা মেরে ফেলতে চায়নি। বানরটা ডুববে না। কারণ, সে ভালো সাঁতার জানে। তবে সে আর ওই দলে ফিরতে পারবে না। তাকে নির্বাসিত করা হয়েছে।



এ পাতার আরও খবর

কাফন মিছিলের পর শাবিতে এবার গণঅনশনের ডাক কাফন মিছিলের পর শাবিতে এবার গণঅনশনের ডাক
চিলাহাটি রেলস্টেশনের উন্নয়ন কাজ বন্ধ চিলাহাটি রেলস্টেশনের উন্নয়ন কাজ বন্ধ
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নতুন প্রজ্ঞাপন ঈদের পর গার্মেন্টস, শিল্পকারখানা বন্ধ থাকবে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নতুন প্রজ্ঞাপন ঈদের পর গার্মেন্টস, শিল্পকারখানা বন্ধ থাকবে
অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা :কুষ্টিয়া সুগার মিল আড়াই কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সাবেক এমডি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা :কুষ্টিয়া সুগার মিল আড়াই কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সাবেক এমডি
কুষ্টিয়া টেলিভিশন ক্যামেরা পারসন এসোসিয়েশন (টিসিএ)র নতুন কমিটি গঠন কুষ্টিয়া টেলিভিশন ক্যামেরা পারসন এসোসিয়েশন (টিসিএ)র নতুন কমিটি গঠন
সভাপতি ডাঃ মুসতানজিদ ॥ সাধারণ সম্পাদক ড. সেলিম তোহা কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটির ২৭ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন সভাপতি ডাঃ মুসতানজিদ ॥ সাধারণ সম্পাদক ড. সেলিম তোহা কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটির ২৭ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন
পিস্তল দিয়ে  হত্যার হুমকি :  সেই অস্ত্রধারীকে সনাক্তের চেষ্টা করছে পুলিশ পিস্তল দিয়ে হত্যার হুমকি : সেই অস্ত্রধারীকে সনাক্তের চেষ্টা করছে পুলিশ
“ দুর্নীতি ও দালাল মুক্ত কুষ্টিয়া চাই ” সামাজিক আন্দোলনের সাথে সহমত প্রকাশ করেছেন এ্যাড. সবুজ “ দুর্নীতি ও দালাল মুক্ত কুষ্টিয়া চাই ” সামাজিক আন্দোলনের সাথে সহমত প্রকাশ করেছেন এ্যাড. সবুজ
অন্য রকম এক ঈদুল আজহা অন্য রকম এক ঈদুল আজহা
সীমান্তে ২০ হাজার চীনা সেনা, ভারতের যুদ্ধপ্রস্তুতি সীমান্তে ২০ হাজার চীনা সেনা, ভারতের যুদ্ধপ্রস্তুতি

আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
NID জালকারী হাজির কারণে কুষ্টিয়া সদরে নৌকার ভোট বিপর্যয় !
কুষ্টিয়ায় পরিবেশ বান্ধব জিকজাক ইট ভাটার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ওরা কারা ?
কুষ্টিয়ার হাটশ হরিপুর ইউনিয়নবাসী তাদের প্রিয় নেত্রী সম্পা মাহমুদকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার দাবি জানিয়েছে
ঢাকাসহ সারাদেশে রেড অ্যালার্ট জারি
অবশেষে ‘‘সৈয়দ মাছ-উদ-রুমী সেতুুর’’ (গড়াই সেতু) টোলে পে-অর্ডারর জাতিয়াতির টাকা ফেরৎ দিল ব্যাংক
কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় মশাল প্রতীকের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি
দৌলতপুরে কৃষি, ব্যাংক কর্মকর্তার ১৩ বছরের কারাদণ্ড
‘একটি গোষ্ঠী ঘটনার জন্ম দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত করতে চায়’
আবরারের মাও যেন বলতে পারে, ‘ন্যায়বিচার পেয়েছি
সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ শাহবাগে ‘গণঅনশন ও অবস্থান’ কর্মসূচিতে সংখ্যালঘুদের ৮ দফা দাবি
আজ বিআরবি কেবল ইন্ড্রাষ্টিজ লিমিটেড এর ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী
কুষ্টিয়া জেলা প্রেসক্লাবের অভিনন্দন
মণ্ডপে হামলা : উস্কানিদাতা ইসলামিক বক্তা গ্রেপ্তার
প্রেমিককে স্বামী বানিয়ে প্রবাসীর সম্পদ লিখে নেন সাকুরা
আবারও বাড়ছে ভোজ্যতেলের দাম
তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে সাঈদ খোকনের চ্যালেঞ্জ ইসলাম ত্যাগ করেন, দুই দিনও মন্ত্রী থাকতে পারবেন না
কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে আপত্তিকর অবস্থা থেকে পালাতে গিয়ে ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে যুবকের মৃত্যু
কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসির নবনির্বাচিত কমিটির দায়িত্ব গ্রহণ ও শপথ অনুষ্ঠিত
চিলাহাটি গার্লস্ স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষের প্রদায়ন ও নবাগত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠিত
স্বামী বিদেশে নেওয়ার আগেই রাতের আধারে প্রেমিকের সঙ্গে পালালেন স্ত্রী