ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮, ৫ শ্রাবণ ১৪২৫
Bijoynews24.com
প্রথম পাতা » Slider » ডা. ফয়সাল ইকবালের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই
বুধবার ● ৪ জুলাই ২০১৮
Email this News Print Friendly Version

ডা. ফয়সাল ইকবালের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই

---Bijoynews : চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে খাবার সরবরাহ, চিকিৎসকদের ইচ্ছানুযায়ী বদলি এবং অপছন্দের চিকিৎসকের বদলি ঠেকানোসহ এন্তার অভিযোগ বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) চট্টগ্রাম জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবালের বিরুদ্ধে। তবে কেউ তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে অভিযোগ করেন না। এর কারণ হিসেবে একাধিক চিকিৎসক বলেন, যে এটা করবে তার পরিণতি খুব খারাপ হতে পারে। বদলি হয়ে যেতে পারেন মফস্বল কোনো এলাকায়। তাই সবাই চুপ করে থাকেন। অভিযোগ রয়েছে, বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জনও ফয়সাল ইকবালের দিকনির্দেশনার বাইরে প্রশাসনিক কোনো সিদ্ধান্ত নেন না। বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চাইলে সিভিল সার্জন ডা. আজিজুল ইসলাম সিদ্দিকী

 

হেসে এড়িয়ে যান। ফয়সাল ইকবালের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ, তিনি সবসময় ভুল চিকিৎসা করা চিকিৎসকদের পক্ষ নিয়ে কথা বলেন। উল্টো রোগীর অভিভাবকদের হুমকি দেন। দেলোয়ারা বেগম নামের এক অভিভাবক চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে গত সোমবার এক সমাবেশে প্রকাশ্যে এ অভিযোগ জানান। ২০১২ সালের ৩০ মে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আমিনুল ইসলামের মলদ্বারে অস্ত্রোপচার করেছিলেন ডা. সুরমান আলী ও জাকির হোসেন। এর পর আমিনুল সেখানে ব্যথা অনুভব করলে তারা দ্বিতীয়বার অস্ত্রোপচার করেন। পরে অবস্থার অবনতি হলে কলকাতার অ্যাপোলো হাসপাতালে রেডিওলজিস্ট দেবাশীষ দত্ত অস্ত্রোপচার করে সেখান থেকে সুঁই বের করে আনেন। চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে ২০১৩ সালের ২৮ জানুয়ারি ডা. সুরমান আলী ও জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ করেন আমিনুলের মা দেলোয়ারা বেগম। মামলাটি সর্বশেষ হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ায়। নি¤œ আদালতে ডা. সুরমান আলী ও জাকির হোসেনকে খালাস দিলেও উচ্চ আদালত তাদের শাস্তি দিতে অভিযোগ গঠনের জন্য নি¤œ আদালতের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন। দেলোয়ারা বেগমের অভিযোগ, সুরমান আলী ও জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা চলাকালে ডা. ফয়সাল ইকবাল তাকে নিজ চেম্বারে ডেকে পাঠান। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য দেলোয়ারা বেগমকে চাপও দেন। ওই নারী তাতে অপারগতা প্রকাশ করলে নিজেকে তিনটি হত্যা মামলার আসামি বলে দাবি করে এর পরিণতিও খুব খারাপ হবে বলে শাসিয়ে দেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চমেক হাসপাতালে রোগীদের খাবার সরবরাহের ঠিকাদারি নিয়েছেন ফয়সাল ইকবাল। তবে নিজ নামে না নিয়ে আত্মীয়দের সাহায্যে সেই কাজ পরিচালনা করেন তিনি। ডা. ফয়সাল ইকবাল স্বয়ং বলেছেন, ‘আমার নামে কোথাও কিছুই নেই। কেউ প্রমাণ করতে পারবেন না।’ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, চমেক হাসপাতালে খাবার সরবরাহের দরপত্র দেওয়ার সময় এমন কিছু শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়, যাতে একটি প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কেউ অংশ নিতে না পারে। ঢাকার বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে খাবার সরবরাহকারী কিছু প্রতিষ্ঠানের যোগ্যতা থাকলেও ভয় ও শঙ্কা থেকে চমেক হাসপাতালে খাবার সরবরাহে আগ্রহ দেখায় না। এদিকে গত ১ জুন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে একটি লিখিত অভিযোগ দেয়। সংগঠনের সভাপতি নাজিমুদ্দিন শ্যামল ও সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস স্বাক্ষরিত ওই অভিযোগে বলা হয়, ডা. ফয়সাল ইকবাল ইতোপূর্বে চিকিৎসাসেবা বন্ধ করার হুমকি দেওয়ায় তা আদালত পর্যন্ত গড়ায়। আদালত তাকে এ ব্যাপারে সতর্ক করা সত্ত্বেও আগের মতোই রোগীদের চিকিৎসা বন্ধের হুমকি দেন তিনি। চমেক হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতাল, ফৌজদারহাট বক্ষব্যাধি হাসপাতালে খাবার সরবরাহসহ দরপত্রও নিয়ন্ত্রণ করেন। তার কাছে টাকা দিলেই জামায়াতের লোক হয়ে যান আওয়ামী লীগ। এমনকি চিকিৎসকের অবহেলায় কোনো হাসপাতালে রোগী মারা গেলে তিনি লাখ লাখ টাকা নিয়ে মধ্যস্থতা করে দেন। শিশু রাইফা খান মারা যাওয়ার পর গত ৩০ জুন রাতে চকবাজার থানায় তিনি পুলিশের সামনে সাংবাদিকদের সারাদেশে চিকিৎসা না দেওয়ার হুমকি দেন। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাংলাদেশে ৪৪ হাজার চিকিৎসক আছেন। তাদের কেউই বলতে পারেন না, চিকিৎসা বন্ধ করে দেবেন। তবে ডা. ফয়সাল ইকবাল সরকারি চাকরি ছেড়ে দেওয়ায় তার বিরুদ্ধে চাকরিসংক্রান্ত ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ নেই।’ এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে ডা. ফয়সাল ইকবাল আমাদের সময়কে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে সব অভিযোগই মনগড়া, কোনো তথ্যপ্রমাণ নেই। দরপত্রের অভিযোগও কেউ প্রমাণ করতে পারবে না।’ থানায় গিয়ে সাংবাদিকদের চিকিৎসা না দেওয়ার হুমকি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আসলে সেখানে আমার এক সহকর্মী বলেছেন, সাংবাদিকরা যদি এ রকম করতে থাকেন তা হলে তাদের চেম্বার আর ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া যাবে না। তাদের সরকারি হাসপাতালে পাঠিয়ে দিতে হবে।’


মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার ফারুকের অবৈধ জমি ও ক্লিনিক ব্যবসার তদন্ত ও শাস্তির দাবি এলাকাবাসির

একাধিক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক: কোদাল দিয়ে তরুণীকে কুপিয়ে হত্যা!


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
পঞ্চগড়ে এইচএসসিতে অকৃতকার্য হওয়ায় ছাত্রীর আত্মহত্যা
ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি স্ত্রীর মামলায় গ্রেপ্তার
শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করা ‘সেই ওসি’কে স্ট্যান্ড রিলিজ!
আপত্তিকর অবস্থায় গায়িকাসহ গ্রেপ্তার গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুদ রানা
ঘরে মেডিকেল ছাত্রীসহ মায়ের গলাকাটা লাশ, বারান্দায় ঝুলছে বাবা
যশোরে ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে হত্যা
স্বামীকে তালাক দিয়ে এসে দেখেন পরকীয়া প্রেমিক উধাও!
এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল
আকাশে দুই বিমানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, সবাই নিহত
৫৫ কলেজে পাস করেনি কেউ
গোপালগঞ্জে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত
ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ থেকে এবারও শতভাগ পাস
গাইবান্ধায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত
সোনাপুর যুব সংঘ এর উদ্যোগে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত
পঞ্চগড়ে বিজিবির ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে জুডো প্রতিযোগিতা
শিক্ষার কি হাল হকিকত !
কক্সবাজারে র‌্যাব-বিজিবির ‘বন্দুকযুদ্ধ’, নিহত ২
নবীনগরে তথ্যমন্ত্রীর সভা প্রতিহতে অনড় আওয়ামী লীগ
আত্মহত্যা করলেন তামিল অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা
এইচএসসির ফল প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর