ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮, ৫ শ্রাবণ ১৪২৫
Bijoynews24.com
প্রথম পাতা » Slider » অপরিবর্তিত বন্যা পরিস্থিতি : কুশিয়ারা নদীর বাঁধে নতুন করে ভাঙ্গন : শহর রক্ষা বাঁধ সংস্কারে কাজ শুরু
বুধবার ● ২০ জুন ২০১৮
Email this News Print Friendly Version

অপরিবর্তিত বন্যা পরিস্থিতি : কুশিয়ারা নদীর বাঁধে নতুন করে ভাঙ্গন : শহর রক্ষা বাঁধ সংস্কারে কাজ শুরু

---মশাহিদ আহমদ মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার কালাইরগুল এলাকায় কুশিয়ারা নদীর বাঁধে নতুন করে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে আজ ১৯ জুন। এতে করে মনু প্রকল্পের ভেতর রাজনগরের উত্তরবাগ, ফতেহপুর ইউনিয়ন পুরোটাই বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ওই সব এলাকা তলিয়ে বন্যা পানি কাউয়াদিঘি হাওর সহ আশপাশ এলাকায় প্রবেশ করছে। নতুন করে ভাঙ্গনে ফলে রাজনগরে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হয়েছে। তবে মৌলভীবাজার পৌরসভা ও সদর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। অপরদিকে কুলাউড়া ও কমলগঞ্জ উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। মনু নদীর পানি মৌলভীবাজার শহরের কাছে বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় পৌর এলাকা ও সদর উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকার বাড়ি-ঘর ও রাস্তা ঘাট তলিয়ে রয়েছে। সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের হামরকোনা এলাকায় কুশিয়ারা নদীর ভাঙ্গন দিয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করে তিনটি গ্রাম ও মনুমুখ ইউনিয়নের ২টি তলিয়ে রয়েছে। অপরদিকে উজানে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় কুলাউড়া উপজেলার মনু নদীর ভাঙ্গন ও কমলগঞ্জ উপজেলার ধলাই নদীর সবকটি ভাঙ্গন দিয়ে বন্যার পানি বের হওয়া বন্ধ রয়েছে। ওই সব এলাকার বাড়ি ঘড় ও রাস্থা ঘাট থেকে বন্যার পানি নামতে শুরু করেছে। তবে কুলাউড়া ও কমলগঞ্জের নি¤œাঞ্চলে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করে মন্ত্রী মৌলভীবাজর পৌরসভাধীন সৈয়ারপুর এলাকায় লোকনাথা সেবা আশ্রম ও সদর উপজেলার শেরপুরে আজাদ বখত উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ  প্রাঙ্গনে বর্ন্যার্থদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। অপরদিকে শহর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শন করতে আসেন পানি স¤পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহজালাল পৌর মেয়র ফজলুর রহমান, পানি উন্নয়ন বোর্ড মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধতন কর্মকর্তাগণসহ বিভিন্ন গুরুত্বপৃর্ন ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। আজ ১৯ জুন থেকেই শুরু হয়েছে শহর রক্ষা বাঁধ সংস্কারে কাজ। গত ১৩ জুন থেকে জেলার ৪টি উপজেলার ৩০টি ইউনিয়ন ও দুইটি পৌরসভা বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়। মৌলভীবাজার জেলায় বন্যা দেখা দেয় ১৩ জুন। বন্যায় সারা জেলায় ৮ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। গত ১৮জুন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বন্যার্তদের দেখতে মৌলভীবাজারে আসেন। মনু ও ধলাই নদের বন্যা প্রতিরক্ষা বাঁধে ১৮টি স্থানে ভাঙনের সৃষ্টি হয়। এইসব ভাঙ্গন দিয়ে পানি প্রবেশ করে কমলগঞ্জ, কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ৩০টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে পড়েন। গত ১৫ জুন থেকে সেনাবাহিনীর চারটি টিম কমলগঞ্জ, কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদরে স্পীডবোর্ড দিয়ে পানিবন্দী মানুষকে উদ্ধার শুরু করে। ১৫ জুন মৌলভীবাজার শহরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া মনু নদের বন্যা প্রতিরক্ষা দেয়াল ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। শহরের মনু নদ তীরবর্তী এম সাইফুর রহমান (সেন্ট্রাল রোড) সড়কের বিভিন্ন ছিদ্র ও দেয়ালের সংযোগের ফাঁক দিয়ে শহরে পানি প্রবেশে করতে থাকে। পৌরসভার পক্ষ থেকে পৌরবাসীকে সতর্ক করে মাইকিং করা হয়। সেনাবাহিনীর প্রকৌশল টিম বন্যা প্রতিরক্ষা দেয়াল পর্যবেক্ষণ করে দেয়ালের পাশে দ্রুত বালু ভর্তি বস্তা দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও মৌলভীবাজার পৌর কর্তৃপক্ষ বলু ভর্তি প্রায় ১৫ হাজার বস্তা দিয়ে শেষ পর্যন্ত বন্যা প্রতিরক্ষা দেয়াল রক্ষা করতে সক্ষম হয়। গত শনিবার রাতে (১৬ জুন) শহরের পশ্চিম এলাকার বরইকোণাতে বন্যা প্রতিরক্ষ বাঁধ (মাটির) ভেঙে মৌলভীবাজার পৌরসভার ৩টি ওয়ার্ড প্লাবিত হয়। মৌলভীবাজার-সিলেট সড়কের প্রায় অর্ধকিলোমিটার স্থান পানিতে ডুবে যাওয়ায় সিলেটের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। গত ১৮ জুন সড়ক থেকে পানি না নামায় সিলেটের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ওই ভাঙা বাধ নিয়ে এখনো পানি ঢুকতে থাকায় মৌলভীবাজার পৌরসভার উপজেলা পরিষদ, বারইকোণা, পূর্ব রড়হাট, পশ্চিম বড়হাট, বড়কাপন, পূর্ব ধরকাপন, পশ্চিম ধরকাপন, শেখেরগাও, দ্বারক, খিদুর, গোবিন্দশ্রী, পূর্বহিলালপুরসহ ছয়, আট ও নয় নম্বর ওয়ার্ডের সকল পাড়া মহল্লার বাসাবাড়িতে পানি উঠেছে। ওইসব ওয়ার্ডের চলাচলের সকল রাস্তা ৩ থেকে ৪ ফুট পানিতে তলিয়ে আছে। পানি নিচের গিকে গড়িয়ে যাওয়ায় মৌলভীবাজার সদর উপজেলার মোস্তফাপুর, কনকপুর, আমতৈল, নাজিরাবাদ ইউনিয়ন নতুন করে বন্যা কবলিত হচ্ছে। গত ১৭জুন থেকে মনু ও ধলাই নদে পানি কমতে থাকায় জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে শুরু করে। বন্যার পানি হ্রাস পাওয়ায় ভাঙাচুড়া রাস্তা ভেসে উঠছে। জেলার কুলাউড়ার শরীফপুর ইউনিয়নে পানির ¯্রােতে একটি বড় কালভার্ট ধেবে গেলে শমশেরনগর থেকে চাতলাপুর চেকপোষ্ট যাওয়ার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এই কলর্ভাট ধেবে যাওয়ায় বাংলাদেশের ও ভারতের ব্যবসায়ীদের আমদানী রপ্তানী বন্ধ হয়ে আছে। গত ১৭ জুন সকালে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সিলেট বিভাগের অতিরিক্ত নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা ও সেনাবাহিনীর ল্যা: কর্ণেল শাহাব উদ্দীন ধেবে যাওয়া কালভার্ট পরিদর্শন করেন। এখানে একটি বেইলী সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। বন্যা কবলিত ৩০টি ইউনিয়নে এপর্যন্ত প্রায় ২ হাজার কাঁচা ঘর ধসে পড়েছে। ৫০ টি আশ্রয় কেন্দ্রে মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। গত ১৮ জুন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া মৌলভীবাজার এসে সরকারী সকল দপ্তর ও ক্ষমতাশীন দলের নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের বক্তব্য থেকে স্পষ্ট ভাবে উঠে আসে বন্যা মোকাবেলায় দপ্তরগুলোর সমন্বয়হীনতার চিত্র। মন্ত্রীর সাথে আসা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল এই অবস্থার জন্য কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বৈঠক শেষে মন্ত্রী জেলা শহরের বারইকোণার ভাঙন পরিদর্শন ও রাজনগর উপজেলার মনসুরনগরের আশ্রয় কেন্দ্রে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন।

মৌলভীবাজারে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় আড়াই লাখ

 

মশাহিদ আহমদ মৌলভীবাজার ঃ মৌলভীবাজার জেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় আড়াইলাখ। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত ১৩ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা এবং ১১৪৩ মেট্রিকটন চাল, ৫হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে এবং ৬৭টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বন্যা দুর্গতদের পূণবার্সনের জন্য বরাদ্ধ হয়েছে ১ হাজার বান্ডিল টিন এবং ৩০ লক্ষ টাকা। আজ ১৯ জুন দুপুরে মনু নদীর শহর রক্ষা বাঁধ পরিদর্শন করে দ্রুত মেরামতের নির্দেশনা দিয়েছেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। কাজও শুরু হয়েছে। এদিকে উজানে পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টিপাত কমে আসায় মৌলভীবাজারের বন্যা পরিস্থিতি ধীরে ধীরে উন্নতির দিকে যাচ্ছে। কমতে শুরু করেছে মনু নদীর পানি। অনেকটা মৌলভীবাজার-সিলেট মহাসড়ক যান চলাচলের উপযোগি হয়ে উঠছে।  রাজনগর, কমলগঞ্জ, কুলাউড়া এবং জেলা সদরের বন্যা দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে জেলা প্রশাসন, মৌলভীবাজার পৌরসভা, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। বিতরণ করা হচ্ছে শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি এবং চাল, ডাল, তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রবাদি। পানি উন্নয়ন বাের্ডের সহেযাগিতায় মৌলভীবাজার শহরের বড়হাটের বারইকোনা ভাঙ্গন মেরামত কাজ প্রাথমিক পর্যায়ে আজ বিকেলে সম্পন্ন করেছে মৌলভীবাজার পৌরসভা।  ফলে মনু নদের পানি শহরে প্রবেশ বন্ধ হয়েছে। এখন নতুন করে উজানের ভারি বৃষ্টিপাত এবং পাহাড়ি ঢল না হলে শহর থেকেও রাতের মধ্যে পানি নামবে বলে আশা করা হচ্ছে।


গাইবান্ধায় মাদক বিরোধী অভিযানে : গ্রেফতার ৭

প্রচারণায় কেন্দ্রীয় নেতারা উত্তেজনা বাড়ছে


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
পঞ্চগড়ে এইচএসসিতে অকৃতকার্য হওয়ায় ছাত্রীর আত্মহত্যা
ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি স্ত্রীর মামলায় গ্রেপ্তার
শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করা ‘সেই ওসি’কে স্ট্যান্ড রিলিজ!
আপত্তিকর অবস্থায় গায়িকাসহ গ্রেপ্তার গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুদ রানা
ঘরে মেডিকেল ছাত্রীসহ মায়ের গলাকাটা লাশ, বারান্দায় ঝুলছে বাবা
যশোরে ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে হত্যা
স্বামীকে তালাক দিয়ে এসে দেখেন পরকীয়া প্রেমিক উধাও!
এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল
আকাশে দুই বিমানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, সবাই নিহত
৫৫ কলেজে পাস করেনি কেউ
গোপালগঞ্জে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত
ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ থেকে এবারও শতভাগ পাস
গাইবান্ধায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত
সোনাপুর যুব সংঘ এর উদ্যোগে ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত
পঞ্চগড়ে বিজিবির ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে জুডো প্রতিযোগিতা
শিক্ষার কি হাল হকিকত !
কক্সবাজারে র‌্যাব-বিজিবির ‘বন্দুকযুদ্ধ’, নিহত ২
নবীনগরে তথ্যমন্ত্রীর সভা প্রতিহতে অনড় আওয়ামী লীগ
আত্মহত্যা করলেন তামিল অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা
এইচএসসির ফল প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর