ঢাকা, রবিবার, ২০ আগস্ট ২০১৭, ৫ ভাদ্র ১৪২৪
Bijoynews24.com
প্রথম পাতা » Slider » মিরপুরে বিএনপি নেতা অধ্যাপক শহিদুলের উপর হামলা : সময়ের ব্যবধানে ঘটনার উলোট-পালট : অথচ মামলা খেলাম আমরা !
বৃহস্পতিবার ● ২০ জুলাই ২০১৭
Email this News Print Friendly Version

মিরপুরে বিএনপি নেতা অধ্যাপক শহিদুলের উপর হামলা : সময়ের ব্যবধানে ঘটনার উলোট-পালট : অথচ মামলা খেলাম আমরা !

 

 

---॥ শামসুল আলম স্বপন ॥

২০ জুলাই-২০১৭ : কুষ্টিয়া ভেড়ামারার ১৬ দাগ (ষোলদাগ) ও ক্ষেমিড়দিয়ার গ্রাম দুটি যেন  রাজনীতির উর্বর ক্ষেত্র । রত্না্গর্ভা এই দুটি গ্রামের মাটি । যে  মাটি জন্ম দিয়েছে অনেক কৃতিসন্তানকে । তাঁর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সাবেক ভুমিমন্ত্রী ব্যারিষ্টার আব্দুল হক,  জাসদ সভাপতি বর্তমান  তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু,বিএনপি নেতা অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম, বর্তমান কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক, কুষ্টিয়া সদর আসনের এমপি জননেতা মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি ।  জাতীয় পার্টির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য আহসান হাবীব লিংকন।
কুষ্টিয়া ৩ আসন মিরপুর-ভেড়ামারা হলেও মুলত অনেক  দলের জাতীয় পর্যায়ের নেতার জন্ম ভেড়ামারায়। কিন্তু সকল দলেরই ভোট ব্যাংক আবার মিরপুর। মিরপুর থেকে যে যত বেশী ভোট টানতে পারেন তাঁর জয় লাভ সহজ হয়। যে করাণে বিএনপি,আওয়ামীলীগ, জাসদের টার্গেট থাকে মিরপুরের ভোটারদের নিয়ে। যখন যে দল ক্ষমতায় থাকে সে দল চায় তাদের নেতা-কর্মী সমর্থক ছাড়া যেন অন্য কোন দলের নেতা-কর্মী-সমর্থক মিরপুর-ভেড়ামারায় না থাকে।
তখন বিএনপি ক্ষমতায় । কুষ্টিয়ার প্রভাবশালী ক্ষমতাধর এমপি জেলা বিএনপি’র তৎকালীন সভাপতি অধ্যাপক শাহিদুল ইসলাম । তিনি সে সময় ছিলেন কুষ্টিয়ার দন্ডমুন্ডের কর্র্তা । তাঁর হুকুম ছাড়া প্রশাসনের সাধ্য ছিলো না কারো বিরুদ্ধে কিছু করা । কুষ্টিয়া ২ আসন মিরপুর-ভেড়ামারায়  বিএনপি’র সমর্থক ছাড়া আর কোন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী-সমর্থকরা থাক কিংবা বাস করুক তা চায়নি বিএনপি’র সে সময়কার একাট্টা নেতারা ।  বিএনপি’র দুটি শাসনামলে (১০ বছর) জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, জাতীয় পার্টির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য আহসান হাবীব লিংকন, আওয়ামীলীগ নেতা মাহবুব উল আলম হানিফ কেউই তখন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে যেতে পারেননি নিজ এলাকায়। ভেড়ামারায় আলম মালিথা আর মিরপুরে রব্বানীর ক্যাডার বাহিনীর কাছে তখন সবায় ছিল অসহায়। প্রশাসন ছিলো নীবর দর্শক।
দিনক্ষণ মনে নেই, মিরপুর উপজেলা মাঠে জাতীয় পার্টির জনসভা হবে।
জাতীয় পার্টির সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য আহসান হাবীব লিংকন থাকবেন ওই জনসভায় প্রধান অতিথি । বিএনপি’র নেতারা তাঁেক জনসভা করতে দেবনে না। তুমুল উত্তেজনা । সংঘর্ষ হতে পারে প্রশাসন সুত্রে এমন খবর পেয়ে সংবাদ সংগ্রহের জন্য গেলাম মিরপুরে । তৎকালীন মিরপুর প্রেসক্লাব নেতা বাবলু রঞ্জন বিশ্বাস ও মোহাম্মদ আলী জনসভা মাঠ সংলগ্ন মিরপুর প্রেসক্লাবে অত্যন্ত সমাদর করে বসতে দিয়ে বললেন এখান থেকে সব শোনা যাবে । ষ্টেজের কাছে যাওয়ার দরকার নেই । পরিস্থিতি খুব একটা ভালো না। জনসভার প্রধান অতিথি সবে মাত্র ষ্টেজে এসে পৌছালেন। মাঠে বেশ জনসমাগম। এর মধ্যে বিএনপি’র কয়েকশত কর্মী মিছিল করে এসে জনসভা পন্ড করার চেষ্টা করছিলো । তাদের শ্লোগান ছিলো “লিংকনের চামড়া তুলে নিবো আমরা ”। “জাতীয় পার্টির জনসভা করতে দেয়া হবে না হবে না”। এমন জোরালো শ্লোগান শুনে জনসভায় আসা লোকজন মাঠ ছাড়ার উপক্রম । তখনও সভা শুরু হয়নি। সম্ভবত পরিস্থিতি বুঝতে পেরে জাতীয় পার্টি নেতা আহসান হাবীব লিংকন চেয়ার থেকে উঠে এসে নিজেই মাইক ধরলেন । তিনি বললেন ভাইসব আপনারা বসুন, জনসভা হবেই । এ কথা বলেই তিনি শুরু করলেন “মিরপুরের ভাই-বোনেরা আপনারা নিজ কানে শুনলেন ওরা আমার চামড়া তুলে নিতে চায় । আমি বলতে চাই, ছোট বেলায় আমার বাবা হাজামত ডেকে রীতিমত অনুষ্ঠান করে চামড়া কাটিয়েছেন । ওরা আবার আমার কিসের চামড়া কাটতে চায়? এ কথা শুনে হাসির রোল পড়ে গেল জনসভায় ।
বিএনপি’র দুটি শাসনামলে জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু কিংবা আওয়ামীলীগ নেতা মাহবুব উল আলম হানিফ রাজনৈতিক জনসভা করা তো দুরে থাক বছরে ২টি পবিত্র ঈদেও  বাড়িতে এসে আত্মীয় স্বজনের নিয়ে শান্তির সাথে ঈদ উদ্যাপন করতে পারেননি ।
বিরোধী দল শুধু নয়, বিএনপি’র সদস্য মিরপুরের সন্তান তরুন শিল্পপতি এম,এ,খালেক বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করার ঘোষণা দেয়ায় তাকে মাঠ ছাড়া করতে সব রকম ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল সে দিন। এম,এ,খালেক একদিন তাঁর সমর্থকদের নিয়ে এক বিশাল মোটর শোভাযাত্রা বের করেন ভেড়ামারা থেকে। আমরা সংবাদ সংগ্রহের জন্য ওই বহরে ছিলাম।
মিরপুর উপজেলার কাছাকাছে আসার সাথে সাথে বিএনপির তৎকালীন ক্যাডার ইব্রাহিমের নেতৃত্বে কয়েকশত বিএনপি’র কর্মী হামলা চালিয়ে এম,এ, খালেকের গাড়ি বহরে। বেশ কিছু গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করে তারা।
ওই সংবাদ প্রকাশ করায় সেদিন অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম ক্ষুদ্ধ হয়ে মিরপুর বিএনপি’র নেতা রব্বানীর ভাই ইব্রাহিম ও তারঁ অনুগত কুষ্টিয়া বিআরটিএর কর্মকর্তাকে দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে একদিনে ৭টি চাঁদাবাজির মামলা করিয়ে
ছিলেন। আমার সাথে আসামী করা হয়েছিল কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের তৎকালীন সভাপতি এম,এ, রাজ্জাক,ইত্তেফাকের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি প্রভাষক মুস্তাফিজুর রহমান মঞ্জু, দৈনিক প্রথম আলো’র তৎকালীন কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তারিকুল হক তারিক, দৈনিক আজকের আলো’র সম্পাদক গাজী মাহবুব রহমান,আজকের আলো পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক জামাল উদ্দিন হায়দারীসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে।
সত্য সংবাদ লেখার কারণে বিএনপি’র দুটি আমলে আমার বিরুদ্ধে ১২টি জিডি ও ১৫টি মামলা করা হয়েছিল । যা আদালতে নিষ্পত্তি হয়ে যায় ।
মানবজমিনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি হাসান জাহিদ মামলার আসামী হওয়া ছাড়া ও শিলাইদহ কুঠিবাড়ির অনুষ্ঠানে লাঞ্চিত হয়েছিলেন । কুষ্টিয়া পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা শ্রদ্ধেয় ইকবাল সোবহান চৌধুরী, সাংবাদিক মুন্সি তরিকুল ইসলাম, আল মামুন সাগরসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক বিএনপি’র ক্যাডারদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছিলেন।
সে সময় পরিস্থিতি এতটায় ভয়াবহ ছিল যে, উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে এসে কুষ্টিয়াতে অবস্থান করতে পারেননি সাংবাদিকরা ।
কুষ্টিয়ার সাংবাদিকদের উপর হামলা- মামলার বিষয়টি দেশের অধিকাংশ পত্র -পত্রিকা ও বিদেশের পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে বিশ্বের ৪(চার) লক্ষ সাংবাদিক আমাদের পাশে দাঁড়িয়ে সমর্থন দিয়েছিলেন এবং মামলা প্রত্যাহার করে নেয়ার জন্য সরকারকে চাপ দিয়ে ছিলেন। যা  দি ডেইলী ষ্টারে ওই সময় প্রকাশিত হয়েছিল। তখন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে তৎকালীন তথ্যমন্ত্রী এম,শামসুল হকের কক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের নেতা রিয়াজ রহমান ও শওকত মাহমুদের নেতৃত্বে অধ্যাপক শহিদুল ইসলামের সাথে কুষ্টিয়ার সাংবাদিকদের সমঝোথা বৈঠক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সকল মামলা প্রত্যাহার করে নেন তিনি।
এই লেখাটির উদ্দেশ্য একটিই তা হলো সময়ের ব্যবধানে একই এলাকায় একই ঘটনার পুনাবৃত্তি ঘটলো।  অধ্যাপক শহিদুল ইসলামের বিএনপি’র নেতা-কর্মী সংগ্রহ অনুষ্ঠানে হামলা চালিয়ে অনুষ্ঠান পন্ড করা হলো । কারা করলেন, কি কারণে করলেন তা সকলেরই জানা কিন্তু এই সত্য কথাটি লিখলে আপনার আমলের মত বলির পাঠা হবে সাংবাদিকরা তাতে কোন সন্দেহ নেই।
রাজনীতিবিদরা আমাদের গর্ব । ১৬ দাগের সকল কৃতি সন্তান আমাদের অহংকার । রাজনীতির অর্থ যদি হয় জনগণের কল্যাণ করা তা হলে আমি অনুরোধ করবো ১৬ দাগের গর্বিত সন্তানদের কাছে আসুন প্রতিহিংসা বর্জন করে কুষ্টিয়াবাসীর কল্যাণে আত্মনিয়োগ করি একযোগে ।

 

লেখক :
শামসুল আলম স্বপন
সভাপতি
বাংলাদেশ মানবাধিকার সাংবাদিক  সংস্থা

সভাপতি
বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন (বনপা)
মোবাইল : ০১৭১৬৯৫৪৯১৯


এতিম শিশুর দিকে সাহায্যের হাত বাড়ালেন ইবি থানার ওসি রতন শেখ

সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পেয়েছে বাংলাদেশে


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
ওরা ক্ষমতায় এলে ১ লক্ষ লোককে খুন করবে’
নিজের স্ত্রীকেই ছয়বার বিয়ে করে তুফান!
৩১টি করিডর খুলে দেওয়ায় ভারত সীমান্ত দিয়ে আসছে গরুর পাল
“ক্যাম্পাস ” ম্যাগাজিনের মোড়ক উন্মোচন
হোটেলে নারীসহ ধরা পড়লো সমাজসেবা কর্মকর্তা
অন্তঃসত্ত্বার কারণেই রিয়া সেনের তড়িঘড়ি বিয়ে!
ন্যান্‌সির আক্ষেপ
ভারতে ট্রেন দূর্ঘটনায় ১০ জন নিহত, আহত ৩০
আজব এক দম্পতি
মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে : হাজ্বী রবিউল ইসলাম
গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত : করতোয়া নদীর পানি বেড়ে গোবিন্দগঞ্জে বন্যা
নওগাঁয় ছোট যমুনা নদীর ভাঙ্গা বাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ অব্যাহত: বন্যার পানিতে পড়ে ২ শিশুর মৃত্যু
১০ দিন পর বগুড়া থেকে ইবি শিক্ষার্থী উদ্ধার
বাংলাদেশ মানবাধিকার নাট্য পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন
চিরিরবন্দরে ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে কলেজ ছাত্র নিহত
পঞ্চগড়ে জমি দখল নিতে এ কেমন বর্বরতা!
নন্দীগ্রামে মাধবকুড়ি গ্রামে বিদ্যুতায়নের উদ্বোধন করলেন এমপি তানসেন
অপহরণের তিন‌দিন পর ক‌লেজ ছা‌ত্রের লাশ উদ্ধার : গ্রেফতার ১
তৃতীয়বারও ক্ষমতায় আসবে শেখ হাসিনা: ভারতীয় পত্রিকা
দক্ষিণবঙ্গের জালিয়াত চক্রের প্রধান জলিল হুজুর গ্রেফতার