ঢাকা, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৬ আশ্বিন ১৪২৪
Bijoynews24.com
প্রথম পাতা » Slider » বন্যায় বাড়ছে দুর্ভোগ, উত্তরে অবনতি : দুর্গত মানুষের আহাজারি
বৃহস্পতিবার ● ১৩ জুলাই ২০১৭
Email this News Print Friendly Version

বন্যায় বাড়ছে দুর্ভোগ, উত্তরে অবনতি : দুর্গত মানুষের আহাজারি

---বিজয় নিউজ : বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে। প্রধান নদনদীর পানি বাড়ায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে বন্যার পানিতে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন লাখ লাখ মানুষ। বন্যাকবলিত এলাকায় খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। ত্রাণের জন্য হাহাকার চলছে বানভাসি মানুষের। বন্যাকবলিত এলাকায় পশুখাদ্যেরও সংকট দেখা দিয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র গতকাল জানিয়েছে, উত্তরাঞ্চলের ৮টি নদনদীর ৯০টি পর্যবেক্ষণ স্টেশনের মধ্যে ৬৩ স্টেশনে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে ১২টি স্টেশনে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মঙ্গলবার যমুনা নদীর বাহাদুরাবাদ স্টেশনে পানি বিপদসীমার ৬৪ সে.মি ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও বুধবার ৭৮ সে.মি ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। একই নদীর সারিয়াকান্দি স্টেশনে মঙ্গলবার ৪০ সে.মি ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও বুধবার প্রবাহিত হয়েছে ৫৫ সে.মি ওপর দিয়ে। এছাড়া মঙ্গলবার যেসব নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল বুধবার সেসব নদীর পানি প্রায় প্রত্যেকটিতেই ৫ থেকে ১৬ সে.মি বৃদ্ধি পেয়েছে। হ্রাস পেয়েছে মাত্র তিনটি পয়েন্টে।
নদনদীর পরিস্থিতির রিপোর্টে বলা হয়েছে, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, গঙ্গা-পদ্মা নদীসমূহের পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটির বৃদ্ধি আগামী ২৪ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। অপর দিকে সুরমা-কুশিয়ারা নদীসমূহের পানি হ্রাস পাচ্ছে। এ দুই নদীর পানি আরো কমবে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রে ‘বৃষ্টিপাত ও নদনদীর অবস্থা’র রিপোর্টে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল নয়টা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত দুর্গাপুর স্টেশনে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ২০০ মিলিমিটার। ভাগ্যকূল স্টেশনে ৮৭ মিলিমিটার, বগুড়া স্টেশনে ১৫২ মিলিমিটার, ঢাকায় ৯৪ মিলিমিটার, দেওয়ানগঞ্জে ৯০ মিলিমিটার, যশোরে ৮০ মিলিমিটার, রাজশাহীতে ৮০ মিলিমিটার, রোহনপুর ৬৯ দশমিক ৫ মিলিমিটার, চাঁপাই নবাবগঞ্জ ৬৭ দশমিক ৫ মিলিমিটার, সাতক্ষীরায় ৬৫ দশমিক ৫ মিলিমিটার, কক্সবাজারে ৬৪ মিলিমিটার, নওগাঁয় ৬২ দশমিক ৩ মিলিমিটার, জামালপুর ৬২ মিলিমিটার, মহাদেবপুর ৫৯ মিলিমিটার, বরগুনায় ৪২ মিলিমিটার, নরসিংদীতে ৩৭ দশমিক ৪ মিলিমিটার ও বৈরববাজার স্টেশনে ৩৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানায়, মৌসুমি বায়ুর কারণে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ অব্যাহত থাকতে পারে। এতে নতুন করে কিছু অঞ্চলে বন্যা হতে পারে। আবার কিছু কিছু অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে যাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।
স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া থেকে জানান, বগুড়াসহ উত্তরের জেলাগুলোতে গত চব্বিশ ঘণ্টা টানা বৃষ্টি এবং উজানের পাহাড়ি ঢল এবং ভারত তিস্তা ব্যারেজের সবগুলো গেট খুলে দেয়ায় যমুনা নদীর পানি লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। ফলে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ১৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে সারিয়াকান্দি ও ধুনট পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ৫৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে সারিয়াকান্দি, ধুনট এবং সোনাতলা উপজেলার ২০ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যার্তরা উপায় না পেয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয়ের জন্য ছুটে এসেছেন।
এদিকে বন্যার্তদের মাঝে এখনো পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রী পৌঁছায়নি। সারিয়াকান্দি উপজেলার ধলিরকান্দি পুরাতন বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নেয়া রিক্তা বেগম, রেজিয়া খাতুন জানান, তাদের থাকার ঘরে এখন কোমরপানি। টিউবওয়েল পুরোটাই পানির নিচে। ঘরের পালিত ৪টি গরু ৮টি ছাগল নিয়ে বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। নিজেদের পাশাপাশি গবাদিপশুর খাদ্য সংকট তাদের চিন্তিত করে তুলেছে। তারা অভিযোগ করেন ত্রাণের কোনো প্যাকেট এখন পর্যন্ত তাদের হাতে পৌঁছেনি।
সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মনিরুজ্জামান বলেন, বুধবার পর্যন্ত সারিয়াকান্দি উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকাগুলোর ৪ হাজার পরিবারকে সরকারিভাবে প্রায় ১২০ টন ত্রাণের চাল, গম বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া ১ হাজার পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার চিড়া, গুড়, খাবার স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করা হয়েছে। আগামীকাল উপজেলা সদর, কাজলা, চালুয়াড়াবী ও হাটশেরপুরসহ ৪ ইউনিয়নে ৩৫ টন চাল বিতরণ করা হবে। পরিবার প্রতি ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হবে।
এদিকে বন্যাদুর্গত এলাকায় দেখা নিয়েছে ডায়েরিয়াসহ পানিবাহিত নানা ধরনের রোগ। এসব রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা বেশি। খাবার স্যালাইন এবং বিশুদ্ধ পানি সংকট বন্যার্তদের দুর্ভোগ আরো বাড়িয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) প্রকৌশলী রুহুল আমিন জানান, মঙ্গলবার সারিয়াকান্দিতে যমুনার পানি বিপদ ৫৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। তিনি জানান, প্রতিদিনই পানি বাড়ছে। এভাবে পানি বৃদ্ধি হতে থাকলে বন্যাদুর্গত এলাকার পরিধি আরো বেড়ে যাবে।
উত্তরাঞ্চল প্রতিনিধি জানান, গাইবান্ধার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেয়া তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি ১৭ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে এখন বিপদসীমার ৫৫ সে. মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ সময় ঘাঘট নদীর পানি ১৭ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৪১ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া তিস্তা, যমুনা ও করতোয়া নদীর পানি এখন বিপদসীমার সামান্য নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বন্যার পানি হু হু করে বৃদ্ধি পাওয়ায় ৪ উপজেলার ৯৫ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।
গাইবান্ধার সিভিল সার্জন ডা. মো. আমির আলী জানান, আমাদের প্রায় ১ হাজার জনের ১২০টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। তারা বন্যাদুর্গত এলাকায় কাজ করছেন। কন্ট্রোল রুম খোলার কাজ চলছে। এছাড়া খাবার স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ও পর্যাপ্ত ওষুধ মজুদ রয়েছে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম মণ্ডল বলেন, নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের ৬১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এসব বিদ্যালয়গুলোর শ্রেণিকক্ষে পানি উঠেছে। এছাড়া আরো ৫২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ ও রাস্তাঘাট প্লাবিত হয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে বিদ্যালয়গুলোকে খুলে দেয়ার জন্য প্রধান শিক্ষকদের বলা হয়েছে।
এদিকে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বন্যার পানি বৃদ্ধির ফলে সুন্দরগঞ্জ, সাঘাটা, ফুলছড়ি ও সদর উপজেলার ২৩টি ইউনিয়নের ঘরবাড়ি, আবাদি ফসল তলিয়ে গেছে। এতে ৭০ হাজার ৯শ’ ২৯টি পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে।
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিনই নিম্নাঞ্চলের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। ভাঙছে নদীতীর। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বন্ধ ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।
বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার দুপুরে জেলায় কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দিকা। তিনি বলেন, বন্যা পরিস্থিতি এখনও সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। জেলার নদীতীরবর্তী ৫টি উপজেলা কাজিপুর, সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, শাহজাদপুর ও চৌহালী উপজেলার ৩০টি ইউনিয়নের চরাঞ্চল সমূহের ১৯৪টি গ্রামের ১৪ হাজার ৮১৬টি পরিবারের ৬১ হাজার ১৮৬জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব এলাকার আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। কিছু মানুষজন বাধ ও উচু স্থানে আশ্রয় নিলেও আশ্রয়কেন্দ্রগুলো এখনও ফাঁকা রয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিভাগওয়ারী কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে দায়িত্ব বণ্টন করে দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিশেষ কারণ ছাড়া জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কর্মরত সরকারী সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, চৌহালী উপজেলা রক্ষা বাধে বারবার ধস দেখা দেয়ায় সরজমিন পরিদর্শন করেছি। বাঁধ তৈরিতে ঠিকাদারের গাফিলতি ও ক্রটি পরিলক্ষিত হওয়ায় বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতি অথবা শুক্রবার দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রীর সিরাজগঞ্জ সফরের কথা রয়েছে বলেও সভায় অবগত করেন জেলা প্রশাসক।
সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ হাসান ইমাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি ১৫ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিকেল ৩টায় বিপদসীমার ৬৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। নদীভাঙন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কাজিপুর উপজেলার মাছুয়াকান্দি এলাকায় অবস্থিত স্যাংক বাঁধ ভেঙে যাওয়া সেখানে বালিভর্তি জিওব্যাগ ফেলে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চরছে। পাশাপাশি চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুরে ও শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী এলাকায় নদীতীর ভাঙলেও বরাদ্ধ না থাকায় সেখানে ভাঙনরোধে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
কাজীপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, কাজীপুরে নতুন নতুন গ্রাম বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে বন্যায় উপজেলার ১৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্ধ হয়ে গেছে। উপজেলা কৃষিসূত্রে জানা গেছে ২ হাজার একশ হেক্টর পাট খেত বন্যায় তুলিয়ে গেছে। এদিকে উপজেলা প্রশাসনের হঠকারিতায় নাটুয়ারপাড়া ইউনিয়নের ফুলজোড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাকা ভবনটি গতকাল যমুনায় বিলীন হয়ে গেছে। উপজেলার বগার মোড় এলাকায় ওয়াপদা বাঁধ চরম হুমকির মুখে রয়েছে।
স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম থেকে জানান, কুড়িগ্রাম জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটেছে। হুহু করে বাড়ছে নদনদীর পানি। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন গ্রাম। কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। ঘরে ঘরে দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি, শুকনা খাবার, জ্বালানি, খাদ্য সংকট। দেখা দিয়েছে পানি বাহিত রোগবালাই। সরকার যে ত্রাণ বরাদ্দ দিয়েছে তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। আবার বরাদ্দ যা পাওয়া যাচ্ছে তা মাঠ পর্যায়ে বিতরণ হচ্ছে ঢিলে-ঢালা ভাবে। ফলে বন্যার্ত মানুষের দুর্ভোগ এখন চরমে।
সরকারে বরাদ্দকৃত ত্রাণ প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম বলে অভিযোগ জনপ্রতিনিধিদের। সদর উপজেলার পাঁচগাছি ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন জানান, তার ইউনিয়নে ৬ হাজার পরিবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হলেও মাত্র ৮ টন চাল পাওয়া গেছে। যা দিয়ে ৮০০ পরিবারকে ১০ কেজি করে দেয়া হয়েছে। চাল বিতরণকালে বুধবার সরেজমিন সেখানে গেলে শিতাইঝাড় গ্রামের মঞ্জু ও নুরজাহান জানান, গলা পানি ভেঙে পরিষদে এসে স্লিপ না পাওয়ায় ত্রাণ পাননি তারা।
রৌমারী উপজেলা সদরের ৯নং ওয়ার্ড কান্দাপাড়ার তিন শতাধিক পরিবার ৭ দিন ধরে পানিতে ভাসছে। বুধবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সময়ে এখানকার মানুষের ভাগ্যে এক ছকাটও ত্রাণের চাল পৌঁছেনি।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল হক জানান, এ পর্যন্ত ৩ শত টন জিআর চাল, ৮ লাখ ২৫ হাজার টাকা ক্যাশ ও ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার ৯ উপজেলায় বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বুধবার পর্যন্ত চলতি বন্যায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
ওদিকে কুড়িগ্রাম সদর ও চিলমারীতে বন্যার পানিতে ডুবে বুধবার দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বন্যায় পানিতে ডুবে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩ জনে। কুড়িগ্রাম সিভিল সার্জন অফিসের কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আখের আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি জানান, চকরিয়ায় বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে মাতামুহুরী নদীর দুতীরের পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধ। পাহাড়ি ঢলের তোড়ে নদীর চকরিয়া অংশের দু’তীরের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। অনেকগুলো ভাঙ্গা দিয়ে এখনও লোকালয়ে জোয়ার-ভাটার পানি উঠানামা চলছে। এতে এ বর্ষা মৌসুমে আমনের চাষাবাদ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ বছর জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে চকরিয়ায় টানা বর্ষণে মাতামুহুরী নদীতে পাহাড়ি ঢল নেমে আসায় দু’কূল উপচে ও বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি হয়। এ বন্যায় পৌরসভাসহ চকরিয়ার ১৮টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। বেশিরভাগ এলাকা থেকে এখন বন্যার পানি নেমে গেছে।
উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ঘুনিয়াতে ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধ গত দু’দিন ধরে স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মাণ শুরু হয়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী জানান; সরকারি বরাদ্দের দিকে চেয়ে থাকলে পুরো ইউনিয়নের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এই এলাকা দিয়ে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা আছে। ইতিমধ্যে ওই এলাকার বহু স্থাপনা ঘরবাড়ি নদীতে তলিয়ে গেছে। তাই তিনি নিজেই সেচ্ছাশ্রমে বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন বলে জানান।
চকরিয়া পেকুয়ার সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ মোহাম্মদ ইলিয়াছ ১০ই জুলাই বিএমচর ইউনিয়নের কুরুল্যার কুমের বড় ভাঙ্গাটি নিজেই লোক দিয়ে নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। এ সময় কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাবিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। সংসদ সদস্য মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন; প্রয়োজনীয় বরাদ্দ দিয়ে বেড়িবাঁধের সব ভাঙনগুলো জরুরি ভিত্তিতে পুনঃনির্মাণ করা না হলে এলাকার মানুষ বারবার ক্ষতির শিকার হবে। আমনের চাষাবাদ ব্যাপকভাবে ব্যাহত হবে।
কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি জানান, গত দুইদিন আগেও জ্যাটে ঘুম পারছি আইজ সে জাগা (জায়গা) তিস্তা নদীর ভিতর। এমন করি প্রতি বছর নদী ভাঙলে হামরা কি খায়া বাঁচমো ? কথা বলছিলেন রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার তিস্তা নদীর ভাঙনে সর্বস্ব হারানো কয়েকটি অসহায় পরিবারের লোক। অবিরাম বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে রংপুরের কাউনিয়ায় তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। পানি বাড়ার সঙ্গে বাড়ছে নদী ভাঙন।
মঙ্গলবার উপজেলার নিজপাড়া, তালুকসাহাবাজ, গনাই, হয়বত খাঁ সহ নদী তীরবর্তী কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, ভারতের গোজল ডোবায় আকশিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তিস্তা নদী কাছাকাছি আসায় লোকজন তাদের ঘর বাড়ি সরিয়ে নিচ্ছেন।


নির্যাতিত হাওয়া আক্তারের কাহিনী এখন বিশ্ব মিডিয়ায় : বিএমএসএস’র নিন্দা

শনিবার লন্ডন যাচ্ছেন খালেদা জিয়া


পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
১৮ সালের প্রথম সপ্তাহে ইবি’র সর্ববৃহৎ সমাবর্তন
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সেনাপ্রধান
হরিণাকুন্ডুতে রহিঙ্গা হত্যার প্রতিবাদে মানব বন্ধন পালিত
৩ বছর ভারতে আটক থাকার পর দেশে ফিরেছে দুই কিশোর
রোহিঙ্গা মুসলিমদের বর্বরোচিত নির্যাতন হত্যার প্রতিবাদ : গোবিন্দগঞ্জ নাগরিক কমিটির মানববন্ধন
বগুড়ায় জেলা বিএনপির সভাপতি কারাগারে, প্রতিবাদে শনিবার হরতাল
ব্যর্থ প্রেমের শোকেই মুসলিম নির্যাতন সু চি’র!
প্রেমের ফাঁদে যুবক খুন
সেই ভিখারি মায়ের স্কুলশিক্ষিকা কন্যা যা বললেন!
মালয়েশিয়ায় গণ-আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের অভিযোগ
কুষ্টিয়ার মিরপুরে কালুগাড়ায় বাস উল্টে আহত-১০
মন্ত্রীদের দেয়া কথা রাখেননি মিল মালিকরা : কুষ্টিয়ার বাজারে এখনো সব ধরনের চাল সেই আগের দরেই বিক্রি হচ্ছে
চুক্তিতে কিশোরী বিয়ে করতে আসা ৮ লম্পট ‘আরব শেখ’ গ্রেফতার
মিশরের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ইবি ভিসির সৌজন্য সাক্ষাৎ
রোহিঙ্গা ইস্যুতে রশির ওপর দিয়ে হাঁটছে ভারত
রোহিঙ্গাদের ত্রাণবাহী ট্রাক খাদে, নিহত ৯
বাংলাদেশের সকল মন্ত্রী এবং সাংসদদের মোবাইল নাম্বার
আরবদের হটিয়ে যেভাবে ইসরায়েল রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের আয়োজনে কুষ্টিয়ার বাঁশগ্রাম আলাউদ্দিন আহমেদ ডিগ্রি কলেজে মাদক বিরোধী আলোচনা সভা
বগুড়ায় সাংবাদিক ইউনিয়নের মানববন্ধন, মিয়ানমারে গণহত্যার প্রতিবাদ